প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কুমিল্লার যেখানেই স্কুল-হাসপাতাল সেখানেই কাঁচাবাজার

মাহফুজ নান্টু: কুমিল্লা মহানগরী ও আশেপাশের এলাকাগুলোতে যেখানেই স্কুল কলেজ ও হাসপাতাল কিংবা সরকারি অফিস রয়েছে সেখানেই সড়ক দখল করে দিনভর কাঁচা তরকারির ক্রেতা বিক্রেতাদের দরকষাকষিতে মুখর থাকে। এতে করে সড়কে চলাচলরত যানবাহনগুলো দীর্ঘ সময় ধরে আটকে থাকে। এতে চরম দুর্ভোগে গন্তব্য পৌঁছাতে হয় প্রয়োজনীয় কাজে নগরীতে প্রবেশ করা সাধারণ মানুষের। দীর্ঘ দিন ধরে নগরীতে চলছে এমন দুর্ভোগ।

সরেজমিনে নগরীর বাদুরতলা এলাকায় অবস্থিত রানীর বাজার সড়কে মর্ডাণ হাই স্কুল, ফরিদা বিদ্যায়তন,ধর্মপুর ভিক্টোরিয়া কলেজ, ফৌজদারী এলাকায় এথনিকা স্কুল,অশোকতলা এলাকায় ইকরা স্কুল,ঝাউতলার মুন হাসপাতাল, কুমিল্লা সদর হাসপাতালের সামনের সড়কে, মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সড়কসহ কুমিল্লার আদালত, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের বাইরের রাস্তায় ও ভিতছে চলছে ভ্রাম্যমান কাঁচা বাজারের ফেরীওয়ালাদের কারবার। সাধারণ যেসব স্থানে সিটি কর্পোরেশন বাজার ব্যবস্থা করেছেন কিন্তু সেগুলোর বাইরে ভ্রাম্যমাণ কাঁচাবাজারের এবং এ থেকে সৃষ্ট যানজটের কারণে অতিষ্ঠ নগরবাসী।

এছাড়া নগরীর অন্যতম প্রবেশদ্বার শাসনগাছা রেলওভারপাসের নিচের সড়ক বিভাজক ও ফুটপাতজুড়েও ফেরীওয়ালাদের হাকডাকে মুখরিত থাকে দিনরাত। এতে করে নগরীর শাসনগাছা দিয়ে প্রবেশ ও প্রস্থানের সময় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় সাধারণ মানুষজনের। নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায়, নগরীর প্রধান সড়কের পাশে ভ্রাম্যমান কাঁচা তরকারী ফেরীওয়ালাদের অবাধ বিচরণ জন্য দায়ী রাজনৈতিক নেতাকর্মী। রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাকর্মীদের ম্যানেজ করেই সড়কের পাশে ফুটপাত দখল করে চলে এসব কার্যক্রম।

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ভেতরে কাঁচা তরকারীসহ দৈনদিন প্রয়োজনীয় সকল পণ্য সামগ্রী ফেরী করে বেড়ায় ফেরীওয়ালারা। অবস্থা এমন হয়েছে যে এখন কাঁচা তরকারী মাছের জন্য বাজারে যেতে হয় না।

তবে সরকারি অফিসগুলোতে ফেরীওয়ালাদের এমন হাকডাকে অতিষ্ঠ সরকারি অফিসে সেবা নিতে আসা সাধারণ মানুষজনসহ সংশ্লিষ্ট অফিসের কর্মকতা-কর্মচারীরা। এমন সমস্যা সমাধানে কোন পদক্ষেপ আছে কিনা জানতে চাইলে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অনুপম বড়ুয়া জানান, সড়কের পাশে ফুটপাত দখল করে- যেসব ফেরীওয়ালা জন দুর্ভোগ সৃষ্টি করছে খুব শীঘ্রই তাদের ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তবে সড়কের পাশে যেসব ফেরীওয়ালারা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করছে তারা মূলত নিম্ন আয়ের মানুষ। তাই বিষয়টি মানবিক দৃষ্টিকোণ দেখা উচিত। তবে তাদের ফেরী করার জন্য বা বাজারগুলোর পাশে পুনর্বাসন করা যায় কিনা তা নিয়ে সংশ্লিষ্টদের সাথে সমন্বয় করে পদক্ষেপ নেবো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ