প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সংবিধানেই আছে সুষ্ঠু নির্বাচনের পথ

আশিক রহমান : সংবিধানের মধ্যেই অংশগ্রহণমূলক সুষ্ঠু নির্বাচনের পথ পাওয়া যাবে বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ বলেছেন, সংকট সমাধানের জন্য সংবিধানের বাইরে যাওয়ার দরকার নেই। এজন্য দরকার ক্ষমতাসীনদের শুভ ইচ্ছা।

আন্তরিকভাবে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন চাইলে কোনো সমস্যা হবে না। অন্যান্য পক্ষেরও আন্তরিকতা থাকতে হবে। তিনি আরও বলেন, আলোচনায় ঐকমত্যে পৌঁছুতে পারলে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হবে। আলোচনার পরিবেশটা ভালো থাকুক। আলোচনার মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত সুষ্ঠু নির্বাচন।

ইতিহাসবিদ অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, ঐক্যফ্রন্ট তিন দফা দাবি নিয়ে কথা বলবে দ্বিতীয় দফা সংলাপে। সংসদ ভেঙে দিলে তারা প্রধানমন্ত্রীর অধীনেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে বলে জানা গেছে। কিন্তু সেটা তো সংবিধানসম্মত নয়। অন্যান্য দাবিগুলোও সংবিধানের সঙ্গে যায় না। ৭ নভেম্বরের আলোচনায় যদি ড. কামাল হোসেন সংবিধান সংশোধন বা সংবিধানের বিরুদ্ধে না গিয়েই রাজনৈতিক সংকট সমাধানের পথে যেতে পারেন ও সরকার যদি সেটা মেনে নেয় তাহলে খুব ভালো হয়।

সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার বলেন, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের জন্য অনেক পথ আছে। আমাদের প্রত্যাশা, রাজনৈতিক দলগুলো কাছাকাছি আসবে, পরস্পর পরস্পরকে ছাড় দেবে। বিশেষ করে ঐক্যফ্রন্ট ও আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন চৌদ্দদলীয় জোট। একপক্ষের দাবি-দাওয়া আছে, আরেক পক্ষের দাবি মানার বিষয় আছে। দুই পক্ষ যতোটা সম্ভব কাছাকাছি এসে, ছাড় দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচন করছে মানুষ তাই দেখতে চায়। সুষ্ঠু নির্বাচনকেই অগ্রাধিকার দেয়া উচিত রাজনৈতিক দলগুলোর।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ