প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এরকম টেস্ট খেলার কোনো মানে খুঁজে পাচ্ছেন না রিয়াদ

স্পোর্টস ডেস্ক : টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতা নতুন নয়। যা শেষ দেখা গিয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে, এবার তাঁর পুনরাবৃত্তি দেখা গেল ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিলেট টেস্টে। ব্যাটসম্যানদের টেস্টের ব্যাটিং নিয়ে আরও মানসিকভাবে শক্ত হতে হবে। তা না হলে এভাবে টেস্ট ক্রিকেট খেলার কোন মানে আছে বলে মনে করছেন না বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে ৪৩ রানে অলআউট হয়েছিল বাংলাদেশ। নতুন কন্ডিশন তাই হয়তো নিজেদের গুছিয়ে তুলতে পারেননি ব্যাটসম্যানরা। কিন্তু এবার ঘরের মাঠেই নিজেদের ব্যাটিং বিপর্যয় দেখেছে টাইগাররা। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হারতে হয়েছে ১৫১ রানে। যা মানতেই পারছেন না অধিনায়ক। তবে বোলাররা তাঁদের কাজ যথাযতভাবে পালন করেছে বিধায় তাঁদের প্রশংসাও করেছেন তিনি।

‘আমরা টেস্ট ক্রিকেট নিয়ে সচেতন। আমরা হয়তো পাঁচ ছয়টা (আট ইনিংস) ইনিংসে রান করতে পারি নি। বোলাররা যথেষ্ট ভাল বোলিং করেছে। প্রতিপক্ষকে অল্প রানে আটকে ফেলছে। ব্যাটসম্যানরা ভাল করছে না। ওয়ানডে ফরম্যাটে ভাল ছন্দে আছে। কিন্তু ওই ডিসিপ্লিনটা হয়তো আমরা টেস্ট ক্রিকেটে নিতে পারছি না। অবশ্যই এটা চিন্তার বিষয়।

‘আমাদের এটা খুব ভালোভাবে চিন্তা করতে হবে। কারণ এভাবে ব্যাট করতে থাকলে মনে হয় না আমরা টেস্ট ক্রিকেটে কোন অবস্থানে থাকব। এটা আমাদের ভাবমূর্তির বিষয় । আমাদের অবশ্যই শক্তভাবে ঘুরে দাঁড়াতে করতে হবে। অন্যথায় এভাবে টেস্ট ক্রিকেট খেলার কোন মানে নেই,’ ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন রিয়াদ।

বোলাররা অপ্রাণ চেষ্টায় জিম্বাবুয়েকে প্রথম ইনিংসে আটকে রেখেছিল তিনশ রানে এবং দ্বিতীয় ইনিংসে দুইশ রানের নিচে। কিন্ত নিজেদের সামর্থ্য দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন ব্যাটসম্যানরা। প্রথম ইনিংসেই ১৪০ রানে পিছিয়ে ছিল টাইগাররা। অলআউট হয়েছে ১৪৩ রানে।

প্রথম ইনিংসে না পারলেও দ্বিতীয় ইনিংসে জয় ছিনিয়ে নিবেন তাঁরা, বিশ্বাস ছিল বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচ স্টিভ রোডসেরও। সাথে ছিল রেকর্ড পরিমান রান তাড়া করে জেতার প্রথম সুযোগ। কিন্তু ৩২১ রানের লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারেননি টাইগার ব্যাটসম্যানরা।

অতিরিক্ত শট খেলার প্রবণতায় ব্যাটসম্যানরা আউট হয়েছেন বাজে শট খেলে। কিন্তু ওয়ানডে ফরম্যাটে ঠিকই ভাল করছে এই ব্যাটসম্যানরাই। তাই নিজেদের ভাবমূর্তির কথা চিন্তা করে ব্যাটসম্যানদের শক্তভাবে ঘুরে দাঁড়াতে হবে, মনে করছেন মাহমুদুল্লাহ। ক্রিকফ্রেঞ্জি