প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

একদিকে আলোচনা অন্যদিকে গ্রেফতার ভালো নির্বাচনের লক্ষণ নয়: দুদু

মো: মারুফুল আলম: বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, গণভবনে যখন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সরকারি দলের আলোচনা চলছিল তখন চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় বিএনপির একজন চেয়ারম্যানসহ দশ জনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের নামে কোনো মামলা ছিল না, গ্রেফতারের পরে তাদের নামে মামলা দেওয়া হলো। তাদেরকে শুধু গ্রেফতার করা হয়নি, বাজারে নিয়ে গিয়ে নির্মমভাবে পেটানো হলো। দুদু এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আলোচনাও করছি আবার সারাদেশ থেকে প্রায় সাড়ে তিন’শ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করছি’ এটাকে ভালো নির্বাচনের লক্ষণ বলা যায় না।

শনিবার আরটিভির টকশো অনুষ্ঠানে তিনি এই কথা বলেন।

সংলাপ হচ্ছে, সংলাপ হবে; এটা গণতান্ত্রিক দেশে একটা শুভ পদক্ষেপ হিসেবে মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, সংবিধানের ১২৩ এর ৩ অনুচ্ছেদের ‘ক’ উপধারায় সংসদ ভেঙে দেয়ার ব্যাপারটি উল্লেখ আছে এবং ৫৬ এর ‘ঘ’ ধারায়ও এ ব্যাপারে নির্দেশনা আছে, তাহলে কেন সরকার সংবিধানকে শুভকাজে ব্যবহার করছে না? নাকি সংবিধানকে বিকৃত করে ধারাগুলো আড়াল করা হচ্ছে?

এই সরকার বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, উদ্দেশ্য, নীতি মানতে চায় একথা উল্লেখ করে দুদু আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ ভেঙে দিয়েছিলেন। সংসদ বহাল রেখে ২০১৪ সালে ছাড়া কোনো সময় নির্বাচন হয়নি। যতগুলো নির্বাচন বাংলাদেশে হয়েছে জাতীয় সংসদ কখনও নির্বাচনকালীন সময়ে বহাল ছিলো না। শেখ হাসিনার বর্তমান প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী। বেগম খালেদা জিয়ার সাথে একটি রাজনৈতিক মামলায় উদ্দেশ্যপূর্ণভাবে বিচারের নামে তামাশা করা হচ্ছে উল্লেখ করে দুদু বলেন, নিম্ন আদালতে যে মামলায় রায় হয় তা উচ্চ আদালতে কমে কিন্তু এখানে বেড়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ