প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারতের অবৈধ অস্ত্র যেভাবে ঢুকছে বাংলাদেশে

বাংলাদেশ জার্নাল : ভারতের মুঙ্গেরে তৈরি অবৈধ অস্ত্রের একটা ভাল বাজার রয়েছে দেশে। বিভিন্নভাবে এই অস্ত্র আসে।

বিবিসি জানায়, ভারতের বিহারের রাজধানী পাটনা থেকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বের শহর মুঙ্গের একসময়ে ছিল উচ্চ বা মধ্যবিত্ত বাঙালীদের হাওয়া বদলের জায়গা।

কিন্তু গত কয়েক দশকে সেই মুঙ্গের আরও বেশী পরিচিত হয়ে উঠেছে বেআইনী অস্ত্র তৈরির জন্য। ভারতে তো বটেই, মুঙ্গেরে তৈরি অস্ত্র পাচার হয় বাংলাদেশেও।

মুঙ্গের জেলা পুলিশ সুপার বাবু রাম বলেন, ভারতে অস্ত্রের চাহিদা বেড়েছে, আর লাইসেন্স প্রক্রিয়ার জটিলতার কারণেও বেআইনী অস্ত্র কারবারীদের কাছ থেকে বন্দুক-পিস্তল কিনছে অনেকে।

তবে এসপি বাবু রামের দাবী, ‘আমাদের লাগাতার চাপের মুখে মুঙ্গের থেকে অনেক বেআইনী অস্ত্র কারবারী এখন পশ্চিমবঙ্গ আর ঝাড়খন্ডে চলে গেছে।’

গত কয়েক বছরে কলকাতার পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন এলাকায় বেশ কিছু অস্ত্র কারখানার সন্ধান পেয়েছে পুলিশ। বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই সাধারণ বসবাসের বাড়ি ভাড়া নিয়ে কারখানা চালু করা হয়েছিল, কিন্তু কারিগর নিয়ে আসা হত মুঙ্গের থেকেই।

বিএসএফ নিয়মিতই সীমান্তের কাছাকাছি অঞ্চলগুলি থেকে বেআইনী অস্ত্র উদ্ধার করে, যা বাংলাদেশে পাচারের জন্যই নিয়ে আসা হয় বলে সীমান্তরক্ষী বাহিনী মনে করে।

বিএসএফ-এর দক্ষিণ বঙ্গ সীমান্ত অঞ্চলের দেয়া একটি হিসাব অনুযায়ী এবছর এখনও পর্যন্ত তারা ২৩টি বেআইনী অস্ত্র পাচারের আগেই উদ্ধার করেছে। যার মধ্যে রয়েছে দেশী পিস্তল, রিভলবার, ৭.৬৫ মিলিমিটার বন্দুক।

অনেকবার এমনও ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে সীমান্ত লাগোয়া অঞ্চল থেকে, যাদের কাছে বন্দুকের নানা অংশ পৃথকভাবে পাওয়া গেছে- কারও কাছে নল পাওয়া গেছে, তো কারও কাছে স্প্রিং বা ট্রিগার।

একটা সময়ে যেমন শুধু মুঙ্গেরে তৈরি বেআইনী অস্ত্রই নিয়ে আসত পাচারকারীরা, আজকাল পশ্চিমবঙ্গের নানা জায়গাতেও মুঙ্গের থেকে কারিগর নিয়ে এসে অস্ত্র তৈরি করানো হচ্ছে।

অক্টোবর মাসেই বাংলাদেশ সীমান্ত নিকটবর্তী পশ্চিমবঙ্গের মালদা জেলায় এরকমই একটি বেআইনী অস্ত্র কারখানার সন্ধান পায় ভারতীয় পুলিশ। সেখান থেকে ২৪টি রিভলবার, এবং ২০০টি আধা-তৈরি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছিল।

দুজন ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে, যারা আদতে মুঙ্গেরের বাসিন্দা। এবছরেরই জুন মাসে ওই মালদাতেই বেআইনী অস্ত্র সহ নয়জনকে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। তাদের প্রত্যেককেই মুঙ্গের থেকে অস্ত্র তৈরির জন্য মালদায় নিয়ে আসা হয়েছিল।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ