প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সাক্ষাতকারে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়
‘সংলাপ ভালো হয়েছে, ফলাফল ভালো হয়নি’

শিমুল মাহমুদ: আওয়ামী লীগের সঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপ প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, সংলাপ ভালো হয়েছে, ফলাফল ভালো হয়নি। পরীক্ষা ভালো হয়েছে, পাশ করিনি। পরীক্ষা দিতেই হবে। সংগ্রাম থেমে থাকে না, সংগ্রাম চলছে, চলবে। শনিবার নয়াপল্টনে নিজ কার্যালয়ে এক সাক্ষাতকারে তিনি এ কথা বলেন।
গয়েশ্বর বলেন, একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য আমরা ৭ দফা দিয়েছি। এ দাবির কোন দফায় সরকারের মনঃপুত নয়। কিন্তু এই সাত দফা জনগণের আকাঙ্খিত দাবি।

সংলাপ সফল হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, আলোচনার টেবিলে বসলেও সরকার সুষ্ঠু নির্বাচনে সহযোগিতার পক্ষে ইতিবাচক কোনো ভ’মিকা রাখে নাই। অতীত অভিজ্ঞতা বলে, আলোচনার টেবিলে কোনো দাবি প্রতিষ্ঠিত হয়নি।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ৬ তারিখের জনসভা থেকে নিশ্চয়ই নতুন একটি বার্তা আসবে জানিয়ে তিনি বলেন, সাত দফা দাবি আদায়ে আমাদের কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। এই কর্মসূচিকে আন্দোলনের কর্মসূচি বলতে পারেন। কারণ, জনসভাও আন্দোলনের অংশ। এই জনসভা থেকেই আন্দোলনের অংশ হিসেবে ৭ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে নিশ্চয়ই কর্মসূচি প্রণয়ন করা হবে। এবং সেখান থেকেই আগামী দিনের পথচলার নির্দেশনা পাবো। মাঝপথে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সরকারের একটা সংলাপ হয়ছে। তিনি বলেন, সংলাপের ফলাফল সম্পর্কে আপনারা অবগত। সংলাপের পরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে জাতির উদ্দেশ্যে নিশ্চয় কিছু বার্তা তো থাকতে হবে। এমনকি শিশু কিশোরদের আকুতিতেও সরকার সাড়া দেন নাই। যখন মাঠে নেমেছে তখন দাবি মানতে বাধ্য হয়েছে। মানলে সরকার তা বাস্তবায়ন করেছে একথাও বলা যায় না। কোটা আন্দোলনের কথাও আমরা জানি। সেটা নিয়েও নয় ছয় হচ্ছে।

এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির এনেতা বলেন, ২০ দলীয় জোটের প্রতিনিধিত্ব করছে বিএনপি-ঐক্যফ্রন্ট। ঐক্যফ্রন্টের কর্মসূচিতে ২০ দলীয় জোটের কোনো কোনো নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থাকেন। আবার নানাবিধ কারণে কোনো কোনো দল উপস্থিত থাকতে পারেন না। যারাই ৭ দফা দাবি বিশ্বাস করে, যার যার অবস্থান থেকে কর্মসূচি পালন করা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সাংঘর্ষিক না। বরং এটা পরিপূরক। যে দলটি ঐক্যফ্রন্টে নাই সে যদি আমাদের ৭ দফা দাবির কর্মসূচি পালন করে, তাহলে মনে করবো তারা আমাদের সহযোগিতা করছে।

তিনি বলেন, সাত দফা দাবি আদায় করার ক্ষেত্রে, অবাধ নির্বাচনের ক্ষেত্রে যেই মাঠে আসুক তাদেরকে আমরা স্বাগত জানাতে পারি। সে যে দলেরই হোক। কেউ যদি অতীতে ভুল করে এখন জনগণের পক্ষে থাকে, তাকে আমি স্বাগত জানাবো, এটিই রাজনীতির নিয়ম। সম্পাদনা : মাহবুব আলম

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ