প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নির্বাচনকে বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করলে কঠোর ভাবে মোকাবেলা করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সুজন কৈরী: আগামী সংসদ নির্বাচনে কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

শনিবার সকালে পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও চার নেতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

তিনি বলেন, নির্বাচনকালীন আমাদের যে নির্বাচন কমিশন আছে তাদের দায়িত্ব আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা করা। আমাদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী দক্ষতা ও পেশাদারিত্বের দিক দিয়ে অনেক সক্ষমতা অর্জন করেছে। কাজেই কেউ যদি কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করে তাহলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তা মোকাবেলা করবে।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে চার নেতার একজন সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছেলে মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলাম বলেন, আমি আশা করবো ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যা, এরপর জাতীয় চার নেতা হত্যাকা-ের যেসব আসামিদের বিচার হয়নি তাদের অতি দ্রুত দেশে ফিরিয়ে এনে বিচার কার্যকর করা হোক। তাছাড়া এই হত্যাকা-ের অন্তরালে যারা রয়েছেন, তাদের মুখোশগুলো আমরা দেখতে চাই। তারা কারা ছিল যারা দেশের সঙ্গে বেঈমানি করেছে। তাদেরও বিচার কার্যকর করা হোক।

এর আগে সকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বঙ্গবন্ধু ও চার নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানান নিহতের স্বজনরাও। এ সময় কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন, মহিউদ্দিন খান আলমগীর, বিএমএ সভাপতি মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, চার নেতার স্বজন ও উত্তরসূরি, আইজি প্রিজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিনসহ সরকারি কর্মকর্তা এবং রাজনৈতিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন। তারা কারাগারের অভ্যন্তরে বঙ্গবন্ধু ও চার নেতার স্মৃতি সংরক্ষিত জাদুঘর ঘুরে দেখেন।

এরপর শহীদ এম. মনসুর আলী স্মৃতি জাদুঘরে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস বিষয়ক একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়। সেখানে জাতীয় চার নেতা হত্যার সঠিক ইতিহাস দেখানো হয়।

প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনি শেষে আইজি প্রিজন্স বলেন, এই কারাগার মুক্তিযুদ্ধের ও বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের অনেক স্মৃতি বহন করছে। এ কারণে এটিকে একটি বিনোদন কেন্দ্র ও জাদুঘরে পরিণত করার জন্য সরকার প্রকল্প গ্রহণ করেছ। যেটা সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। এখনও তিনটি জাদুঘর এখানে রয়েছে, তবে তা সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত না। বিশেষ বিশেষ দিবসে একটি খুলে দেওয়া হয়। আর আমরা আশা করছি, ২০২০ সালের মধ্যে এই জাদুঘর ও বিনোদন কেন্দ্রের প্রকল্প সম্পন্ন হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ