Skip to main content

বাম ঐক্য- জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেয়নি : বাম ঐক্যে’র সমন্বয়ক

রফিক আহমেদ : গণতান্ত্রিক বাম ঐক্যে’র সমন্বয়ক কমরেড ডা. এম. এ সামাদ বলেছেন, ‘গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য’ জেএসডি’র মাধ্যমে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিয়েছে। যা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন, মিথ্যা, বানোয়াট ও বিভ্রান্তিকর। শুক্রবার সকাল ১১ টায় তোপখানা রোডস্থ কমরেড নির্মল সেন মিলনায়তনে গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। ‘আ.স.ম আব্দুর রবের জেএসডি’র ৪৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে একটি মিথ্যা, বানোয়াট সংবাদ উপস্থাপনের প্রতিবাদে’ এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। ডা. এম. এ সামাদ বলেন, গত ৩১ অক্টোবর জাতীয় প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত আ.স.ম আব্দুর রবের জেএসডি’র ৪৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে একটি মিথ্যা, বানোয়াট সংবাদ উপস্থাপন করা হয়েছে। সংবাদে বলা হয়েছে ‘গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য’ জেএসডি’র মাধ্যমে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিয়েছে। যা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন, মিথ্যা, বানোয়াট ও বিভ্রান্তিকর। বাম ঐক্যের সমন্বয়ক বলেন, গণতান্ত্রিক বাম ঐক্যের অন্তর্ভূক্ত ৭টি রাজনৈতিক দল জেএসডি’র মাধ্যমে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেয়ার যে সংবাদ প্রচারিত হয়েছে ‘গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য’ তা দৃঢ়ভাবে প্রত্যাখান করছে। ‘গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য’ বা তার কোন দল জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেয় নাই। ‘গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য’ উক্ত মিথ্যা, বানোয়াট ও বিভ্রান্তিকর সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে। তিনি বলেন, শাসক রাজনৈতিক জোট- মহাজোট ক্ষমতাকে আকড়ে রাখার জন্য বর্তমানে ও অতীতে রাজনৈতিক অস্থিরতা তৈরি করেছে। যা বাংলাদেশের জনগণের (শ্রমিক-কৃষক-ছাত্র-যুব-জনতা) কাম্য নয়। আমরা দেখছি, অতীতের পতনশীল শাসকরা বর্তমান শাসকদের বিরুদ্ধে জোটবদ্ধ হয়েছে। উভয় শাসক চক্রের কর্মকাণ্ডে দেশের মানুষের সম্পদ লুট করা, বিরোধীপক্ষকে অনৈতিকভাবে দমন করা। আমরা গণতান্ত্রিক বাম ঐক্যের পক্ষ থেকে উভয় শাসক পক্ষের বিরুদ্ধে আন্দোলন-সংগ্রাম করার জন্য ‘গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য’ গড়ে তুলেছি। আমরা সাতটি রাজনৈতিক দল শ্রমিকের পক্ষে, কৃষকদের পক্ষে, শোষিত ছাত্র- জনতার পক্ষে, মজুর শ্রেণীর মানুষের পক্ষে আন্দোলন-সংগ্রাম করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। গত ৩১ অক্টোবর বুধবার বিকাল ৪ টায় জাতীয় প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে ১৯ দলের সাথে ঐক্যমত পোষণ করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে যে সংবাদ জেএসডি সভাপতি আ. স. ম আব্দুর রব সাংবাদিকদের সামনে প্রকাশ করেছে, আমাদের সাতটি রাজনৈতিক দলের কোন ধরনের নেতা কর্মী ওই সভায় উপস্থিত ছিলেন না। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সম্পাদক কমরেড হারুন চৌধুরী, জাতীয় বিপ্লবী পার্টির আহ্বায়ক কমরেড আবুল কালাম আজাদ, সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড ডা. সামছুল আলম, বাংলাদেশের সোস্যালিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাহিদুর রহমান, বাংলাদেশের সমতা পার্টির সভাপতি কমরেড ফরহাদ চৌধুরী ও বাংলাদেশের শ্রমিক পার্টির সভাপতি কমরেড ফেরদৌস।

অন্যান্য সংবাদ