প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আমি এক মেয়ের হাত ভেঙে দিয়েছিলাম : পাকিস্তানী ফাইটার দ্যা আর্ম কালেক্টার

স্মৃতি খানম: অ্যানিটা করিমের ডাক নাম দ্যা আর্ম কালেক্টার কারণ তিনি প্রতিপক্ষের হাত ভেঙে দেন অ্যানিটা করিম পাকিস্তানের প্রথম নারী এমএমএ ফাইটার। তিনি ট্রেনিং পেয়েছেন তার তিন ভাইয়ের কাছ থেকে। এরা সবাই পেশাদার ফাইটার।
ফাইট শুরু করার ১৮ মাসের মধ্যে অ্যানিটা পেশাদার হয়ে ওঠে।

তিনি বলেন, আমার প্রথম ব্রাজিলিয়ান জুজুৎসু টুর্নামেন্টে আমি এক মেয়ের হাত ভেঙে  দিয়েছিলাম। আরেকজনের হাত মচকে দিয়েছিলাম।

ঐ ম্যাচের পর আমার ভাই আমাকে আর্ম কালেক্টার নামে ডাকতে শুরু করে। আমার সমাজের রীতি এই যে একটা মেয়ের জন্মের সাথে সাথে তার ভাগ্য লেখা হযে যায়। সে বড় হয়ে কী হতে চায় তা নিয়ে তা নিয়ে তার নিজের কিছু বলার থাকে না।
একজন মেয়ের জন্য সবচেয়ে বড় সহায় হচ্ছে বাবা মা। তারা পেছনে থাকলে একটা ছেলের মতোই একটা মেয়েও অনেক কিছু করতে পারে। আমার বাবা-মা ও অনেক কিছু করেছেন।

ছোটেবেলায় অ্যানিটা যখন ছেলেদের সাথে ট্রেনিং নিতো তখন ছেলেরা তাকে মারতে চাইতো না। তখন  তার ভাইয়েরা বলতো ওকে মারো। মেয়ে বলে মাফ করো না এবং তাকে মারতো। প্রফেশনাল ম্যাচে হেরে গেলেও অ্যানিটা সড়ে যায়নি।

আ্যনিটা আরো বলেন, শুধু মনে হতো ট্রেনিং এ কোথাও কিছু একটা ভুল হচ্ছে কিনা। আমি এখন আরো ভালভাবে ট্রেনিং শুরু করবো। এবং নরিং এ ফিরে আসবো। সূত্র: বিবিসি বাংলা