প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এবার রাজাকার পুত্র হাফিজুর রহমান বাবু’ এর বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্বারক লিপি প্রদান

নিউজ ডেস্ক: অদ্য দুপুর ১ ঘটিকার সময় নাগেশ্বরী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর কুখ্যাত রাজার পুত্র হাফিজুর রহমান গং এর বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান করেছে।

বরাবর
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদশে সরকার
প্রধানমন্ত্রীর র্কাযালয়, তেজগাঁও, ঢাকা।

মাধ্যমঃ উপজলো নর্বিাহী অফসিার, নাগশ্বেরী উপজলো কুড়গ্রিাম।

বিষয়: মোঃ হাফজিুর রহমান বাবু (পতিা কুূখ্যাত রাজাকার-মৃতঃ শাহ্জাহান আলী ব্যাপারী) গং এর অত্যাচার-র্দুনীত, মিথ্যা পরচিয় দয়িে জানে মরেে ফলোর হুমকি ভূমি দখল, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি র্কমকান্ড ও মাদক ব্যবসায়ীর বরিুদ্ধে অভিযোগ।

সবিনয় নিবেদন এই যে, আমরা নিম্নস্বাক্ষরকারীগণসহ কুটিপয়রাডাঙ্গা গ্রামবাসী, নাগেশ্বরী পৌরসভা, কুড়িগ্রাম জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশে শান্তিতে বসবাস করে আসছি। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতাকারী ও তাদের পরিবারের অত্যাচারে কুটিপয়রাডাঙ্গা গ্রামবাসী অতিষ্ঠ হয়ে পরেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনি যখন দেশ সেবায় ব্যস্ত এবং দেশের উন্নয়নের কাজ করছেন তখনই কিছু বাংলাদেশ বিরোধী রাজাকার ও তার পরিবারের লোকজনের বিভিন্ন কর্মকান্ডে সমালোচিত হচ্ছে দেশ ও দেশের মানুষ। তেমনি কুখ্যাত রাজাকার শাহজাহান আলী ব্যাপারীর ছেলে মোঃ হাফিজুর রহমান বাবু গং, গ্রামঃ কুটিপয়রাডাঙ্গা, ডাকঘরঃ পয়রাডাঙ্গা, উপজেলাঃ নাগেশ্বরী, জেলাঃ কুড়িগ্রাম এর অত্যাচার দুর্নীতি, মিথ্যা পরিচয় দিয়ে জানে মেরে ফেলার হুমকি, ভূমি দখল, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি কর্মকান্ড ও মাদক ব্যবসার মাধ্যমে গ্রামে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করে যাচ্ছে। অত্র গ্রামের বহু মানুষ তাদের প্রতারণার শিকার এবং গ্রামের বহু মানুষের বিরুদ্ধে মিথ্যা জিডি, মামলা ও ভয়ভীতি করিয়া আসিতেছে। তার পিতা মৃত- শাহজাহান আলী ব্যাপারী মুক্তিযুদ্ধের সময় হতে বেঁচে থাকা পর্যন্ত মানুষের উপর জুলুম অত্যাচার করেছে। তার পিতা শাহজাহান আলী ব্যাপারী কুটি পয়ড়াডাঙ্গা গ্রামের কুখ্যাত রাজাকার হিসেবে পরিচিত। গ্রামবাসী সকলেই তাদের নির্যাতনের শিকার। এ নিয়ে সম্প্রতি বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় রাজাকার শাহজাহান আলী ব্যাপারীর ছেলে মোঃ হাফিজুর রহমান বাবু ও বকুলসহ তার ছেলে হাসিবুর রহমান হাসিব দুর্নীতির চিত্র অপরাধমূলক কর্ম এবং মিথ্যা পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন সময় গ্রামবাসীর কাছ থেকে চাঁদা দাবি করে আসছে এই মর্মে সংবাদ প্রকাশিত হয়। মোঃ হাফিজুর রহমান বাবু ভূয়া পরিচয় দিয়ে চাঁদাবাজি নিয়ে দেশের শীর্ষস্থানীয় পত্রিকা আমাদের সময়.কম, রংপুর লাইফ, নিউজ বাংলাদেশ.কম, নতুন সময়.নেটসহ বিভিন্ন জাতীয় পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। ইহাছাড়াও গত ১৭ জুলাই ২০০৭ সালে দৈনিক খবরপত্র পত্রিকায় ও ২৮ অক্টোবর ২০১৮ সালে দৈনিক সকালের কাগজ পত্রিকায় প্রকাশিত নাগেশ্বরী প্রেসক্লাবের মাসিক সভায় হাফিজুর রহমান বাবুর বিরুদ্ধে মিথ্যাচার, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, ভূমি দখল, মাদক ব্যাবসাসহ বিভিন্ন দূর্নীতির চিত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। অত্র গ্রামবাসী হাফিজুর রহমান বাবু ও তার পরিবারের অত্যাচারে অতিষ্ট। কেউ জমি নিয়ে, কেউ চাকুরীর টাকা দিয়ে, কেউ মিথ্যা মামলায় জর্জরিত হয়ে ইত্যাদি আচরণ সংঘটিত করাই তার পরিবারের লোকদের স্বভাব। তাদেরকে কিছু বলতে গেলে তাদের পরিবারের লোকজন বিভিন্ন হুমকি ধামকি প্রদান করে। যেকোন সময় তাদের অন্যায় কাজের বিরোধীতা করলে গ্রামবাসীর বিভিন্ন জনকে জানে মারবে বলে হুমকি প্রদান করে। সে আরও বলে যে, কোন গ্রামবাসী হাফিজুর রহমান বাবুর বিরুদ্ধে কোথাও বিচার প্রার্থী হলে সে গ্রামবাসীদেরকে গ্রাম থেকে তাড়িয়ে দেবে বলে হুমকি দেয় এবং তার ছোট ভাই মোস্তাফিজুর রহমান (বকুল) বলে এ গ্রামে আমরা দীর্ঘদিন যাবত শাসন করে আসছি, এখনও শাসন করবো। এতে কেউ বাধা প্রার্থী হলে তাকে আমরা বিভিন্ন দিক থেকে ক্ষতি সাধন করব ও মামলায় ফাসিয়ে দেবো এবং বলে আমাদের সাথে প্রশাসনের লোক আছে। হাফিজুর রহমান বাবু বিভিন্ন সময় মোঃ আবুল হাসেম, পিতাঃ মৃত- মজাহার আলী, সাং- বালাসি পাড়া, পয়ড়াডাঙ্গা, নাগেশ্বরী, কুড়িগ্রাম, মোঃ ওসমান গনি, পিতাঃ ইউনুছ আলী, গ্রামঃ মালভাঙ্গা, নাগেশ্বরী, কুড়িগ্রাম এবং মোঃ শফিকুল ইসলাম সরু, পিতাঃ মৃত ফজলুল হক‘দেরকে সঙ্গে নিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম করে বেড়ায় এবং তাদের মাধ্যমে গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা মোকদ্দমা, মিথ্যা জিডি, মিথ্যা অভিযোগ করে এবং মিথ্যা সাক্ষী হিসেবে হাফিজুর রহমান বাবুর পক্ষে তাদেরকে ব্যবহার করে। উক্ত হাফিজুর রহমান বাবু বলে আমি নাগেশ্বরী প্রেসক্লাবের সভাপতি ও বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম নাগেশ্বরী উপজেলা শাখার আহবায়ক হিসেবে দাবী করে। কিন্তু খোজ খবর নিয়ে জানা গেলে আসলে এসবের কিছু নাই। গত ২৮ অক্টোবর ২০১৮ সালে দৈনিক সকালের কাগজে খবর প্রকাশ হয় যে নাগেশ্বরী প্রেসক্লাবের মাসিক সভায় সভাপতি নাগেশ্বরী প্রেসক্লাব, মোহনা টিভি ও দৈনিক যায়যায় দিন প্রতিনিধি ওমর ফারুক। সে অত্র গ্রামে মসজিদের টাকাও আত্মসাত করেছে। আবার কখনও বলে আমি জাতীয় পার্টির নেতা এ পরিচয়ে অনেকের কাছ থেকে চাকুরী দেওয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত করে এবং আরো বলে আমি এমপির খুব কাছের লোক আমার কেউ কিছু করতে পারবে না। এমতাবস্থায়, আমরা গ্রামবাসী রাজাকারের পরিবারের অত্যাচারের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য ও সুবিচারের জন্য আপনার স্মরণাপন্ন হইলাম। হাফিজুর রহমান বাবু দীর্ঘদিন আমাদের উপর অত্যাচার করে আসছে। বর্তমানে তাদের অত্যাচার দিন দিন বেড়ে যাওয়ায় আমরা গ্রামবাসী পরিবার নিয়ে হুমকির মুখে আছি। সে অথবা তার পরিবার আমাদের পরিবারের উপর যেকোনো সময় বড় ধরনের ক্ষতি করতে পারে এবং তার সাথের সন্ত্রাসী লোকজন গ্রামবাসীর কাউকে কাউকে জানে মেরে ফেলতে পারে। কুখ্যাত রাজাকার শাহজাহান আলী ব্যাপারীর পরিবার ও মোঃ হাফিজুর রহমান বাবুর অত্যাচার হতে মুক্তির জন্য আইনগত সহায়তাসহ আপনার কাছে সুবিচারের প্রার্থনা করছি।

এছাড়াও হাফিজুর রহমান বাবুর কথিত আত্মীয় কর্ণেল শামীম বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এর নাম ব্যবহার করে ক্ষমতার দাপট দেখায়। এমনকি লোকমুখে শোনা যায় কর্নেল শামীম নাকি হাফিজুর রহমান বাবুর পক্ষে ফোন করে প্রশাসনকে নিশ্চুপ রাখে, যা হাফিজুর রহমান বাবু গ্রামবাসীকে বলে বেড়ায়। এছাড়াও সে মানুষের নামে মিথ্যা অভিযোগ, জিডি ও মিথ্যা মামলা করে গ্রামবাসীকে হুমকি দেয় এবং বলে বেড়ায় অভিযোগ দিব কিছু হোক না হোক সম্মান তো যাবে। সে বিভিন্ন জনকে বিভিন্ন চাকুরী দেওয়ার কথা বলে এলাকার গরীব ও অসহায় লোকদের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করে নিচ্ছে। মোঃ হাফিজুর রহমান বাবু এলাকার মানুষকে বিভিন্নভাবে থানা পুলিশ এর ভয় দেখিয়ে হয়রানী করে আসছে। মোঃ হাফিজুর রহমান বাবুর ছোট ভাই বকুল ও তার ছেলে হাসিবুর রহমান হাসিব প্রশাসনকে ফাঁকি দিয়ে এলাকায় দিনের পর দিন অবাধে ফেন্সিডিল ও ইয়াবার ব্যবসা করে আসছে। যার ফলে গ্রামের যুব সমাজ মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছে। এলাকাবাসী তার ও তার পরিবারের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হচ্ছে দিনের পর দিন। উপরে উল্লেখিত যাবতীয় সন্ত্রাসী কার্যকলাপ, এলাকায় চাঁদাবাজি, মানুষ হয়রানী, মাদক ব্যবসা এবং আরো অনেক জঘন্য কাজ করে যাচ্ছে। বেশ কিছুদিন আগে মোঃ হাফিজুর রহমান বাবুর ছেলে হাসিবুর রহমান হাসিব ফেন্সিডিল ও ইয়াবাসহ পুলিশের কাছে ধরা পড়েছে। এরপরেও মোঃ হাফিজুর রহমান বাবু এলাকার ভিতরে বিভিন্ন ধরণের অবৈধ কর্মকান্ড প্রকাশ্যে চালিয়ে যাচ্ছে। তার অতিষ্ঠে নাগেশ্বরী এলাকার কোন লোকজন শান্তিতে নেই। প্রতিদিন এলাকা বাসীর কাছে বিভিন্ন কাজের অজুহাতে নামে বেনামে চাঁদা সংগ্রহ করতেছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় তার অন্যায়/অবৈধ কাজ করার পরেও প্রকাশ্যে এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। প্রাণের ভয়ে আমরা এলাকার সাধারণ লোকজন তার বিরুদ্ধে কিছু বলতে পারছিনা।

অতএব মহোদয়ের নিকট বিনীত প্রার্থনা এই যে, উল্লেখিত সন্ত্রাসী, ভূয়া পরিচয়দানকারী, মাদক ব্যবসায়ী, টাকা আত্মসাৎকারী, চাঁদাবাজ মোঃ হাফিজুর রহমান বাবু এর বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করে এলাকায় শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস এবং রাজাকার মুক্ত সমাজ গঠনে আপনার সদয় মর্জি কামনা করছি। সূত্র: রংপুর লাইভ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ