Skip to main content

 চলতি বছরে ৪‘শ কোটি টাকার সুপারী উৎপাদন লক্ষ্মীপুরে

হ্যাপি আক্তার : চাষীরা বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অবলম্বনের পাশাপাশি আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় ক্ষ্মীপুরে বাড়ছে সুপারী উৎপাদন। চলতি বছরে প্রায় ৪’শ কোটি টাকার সুপারী উৎপাদন হয়েছে লক্ষ্মীপুরে। ফলন ভালো হওয়ায় জেলার চাহিদা মিটিয়ে এসব সুপারি সরবরাহ হচ্ছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। মৌসুমের শুরুতেই সুপারী বেচা কেনায় ব্যস্ত সময় পার করছে সুপারী চাষী ও ব্যবসায়ীরা। জেলার চাহিদা মিটিয়ে লক্ষ্মীপুরের সুপারী যাচ্ছে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রংপুর, ময়মনসিংহ, রাজশাহীসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। প্রতি কেজি সুপারী বিক্রি হচ্ছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকায়, আর প্রতি মণের দাম সাড়ে সাত থেকে আট হাজার টাকা। কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, চলতি বছর জেলার ৫টি উপজেলায় ৬ হাজার ২৬৫ হেক্টর জমিতে সুপারী উৎপাদন হয়েছে। গত বছরের তুলনায় দাম ভালো পাওয়ায় সুপারি চাষে আগ্রহ বাড়ছে চাষীদের। লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দালাল বাজার, ভবানীগঞ্জ, মান্দারী, জকসিন, চন্দ্রগঞ্জ ও রায়পুর বাজারসহ শতাধিক স্থানে সুপারীর হাট বসে। চাষীরা বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অবলম্বন করায় দিন দিন ফলন ভালো হচ্ছে। তাই কৃষি বিভাগও নিয়মিত পরামর্শ দিচ্ছে চাষিদের। লক্ষ্মীপুর কৃষি বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক কিশোর কুমা মজুমদার বলেন, লক্ষ্মীপুরে যে সুপারীর বাগান আছে সেগুলো অনেক পুড়নো বাগান। এগুলো পরিচর্যা করার জন্য কৃষি অধিদপ্ত কাজ করে যাচ্ছে। লক্ষ্মীপুরে এবার সাড়ে ১২ হাজার মেট্রিক টন সুপারী উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়েছে, যার বাজার মূল্য ৪’শ কোটি টাকা বলে জানায় কৃষি বিভাগ। সূত্র : ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন