প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঐক্যফ্রন্টের সাথে সংলাপ হচ্ছে না, আলোচনা হবে : নাঈমুল ইসলাম খান

জুয়েল খান : দৈনিক ‘আমাদের নতুন সময়’এর সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খান বলেন, ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্বে দলগুলো সংলাপ চেয়েছে কিন্তু প্রধানমন্ত্রী চিঠিতে আলোচনার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছে। ঐক্যফ্রন্টের সাথে আওয়ামী লীগের আলোচনা হতে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর চিঠিতে কোথাও সংলাপ কথাটা উল্লেখ নেই। বুধবার রাতে ডিবিসি নিউজের এক আলোচনায় তিনি এসব কথা বলেন।

নাঈমুল ইসলাম খান বলেন, সংলাপের একটা স্ট্রাকচার থাকে। সংলাপের জন্য মডারেটরের প্রয়োজন হয়। দুইটা পক্ষকে ম্যানেজ করা জন্য নিয়মনীতি থাকে এবং এক-একটা ইসুতে দুইটা পক্ষ ভালোমন্দ আলোচনা করে একটা জায়গায় পৌঁছায়। তবে তিনি বলেন সংলাপ না বলা হলেও এই আলোচনাকে ছোটকরে দেখার কোনো সুযোগ নেই।

তিনি বলেন, ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে যখন এই ৭ দফা তৈরি করা হয় তখন প্রত্যেকটা দফাতেই মেনেনেয়ার মতো কিছু কিছু জায়গা রেখে দেওয়া হয়েছে। সংবিধানের মধ্যে থেকেই অনেককিছু মেনে নেয়া সম্ভব। কারণ ড. কামাল হোসেন চাচ্ছিলেন যেকোনোভাবে নির্বাচনটা হোক। এবং বিএনপিসহ সবাই যেন অংশগ্রহণ করে।

সরকারের পদত্যাগ করার বিষয়ে তিনি বলেন, সরকারের পদত্যাগ করা সম্ভব। পদত্যাগ করা বোঝাবে যে এই মুহুর্তে যেভাবে সরকার আছে ওইভাবেই সরকার পদত্যাগ করবে কিন্তু স্বয়ংক্রিয়ভাবে আবার শেখ হাসিনার উপরেই দায়িত্ব পড়বে নতুন সরকারের প্রধান হিসাবে, নির্বাচনকালীন সরকার হিসাবে। এসবকিছুই সংবিধানের মধ্যে থেকেই করা যাবে। প্রধানমন্ত্রী আগেই এইরকম একটা ছোট মন্ত্রিসভা করার কথা বলেছিলেন। তবে

এটা কিন্তু লোক দেখানোর জন্য সরকার পরিবর্তন, কোনো কার্যকরি পরিবর্তন না। নির্দলীয়-নীরপেক্ষ সরকার গঠন করতে হলে অবশ্যই সংবিধান পরিবর্তন করতে হবে। খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রসঙ্গে তিনি বলেন,মনস্তাত্বিকভাবে ভাবে খালেদা জিয়ার এক প্রকার মুক্তি হয়েই আছে। কারণ তিনি কিন্তু জেলখানায় নেই, আছেন হাসপাতালে। তবে খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। নির্বাচনের আগে হয়তো খালেদা জিয়াকে তার পছন্দের যায়গা ইউনাইটেড হাসপাতালে রাখা যেতে পারে।

তিনি আরো বলেন, বিএনপি কিংবা ড. কামাল হোসেন এখন তাদের দাবির বিষয়ে যতটা শক্ত অবস্থান নিয়েছেন এটা স্বাভাবিক। কারণ আলোচনায় বসার আগেইতো ছাড় দেয়ার কোনো সুযোগ থাকে না। তবে ছাড় দিবে আলোচনার পড়ে। তাদের এই দাবিদাওয়ার বিষয়টা দুই ধাপে বাস্তবায়ন হবে। একটা অংশ নির্বাচনের আগ পর্যন্ত বাস্তবায়ন হবে আর একটা আংশ নির্বাচনে পরে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে এবং সেই নির্বাচনে বিএনপি অবশ্যই অংশগ্রহন করবে। সুত্র: ডিবিসি নিউজ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ