প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দেশের খেজুর গাছে নতুন পোকা

মতিনুজ্জামান মিটু : জায়ান্ট মিলিবাগসহ কোনো পোকাই দমন করা যাচ্ছেনা, এরই মাঝে দেশের খেজুর গাছে দেখা গেছে অপরিচিত এক ধরনের নতুন পোকা। দেশের খেজুর গাছে এই পোকার অস্তিত্বের কথা জানিয়ে ছবি পাঠিয়েছেন গাজিপুরের কালিগঞ্জের জনৈক ব্যক্তি। ছবিটি পেয়ে ওই পোকা সম্পর্কে জানতে তৎপর হয়ে উঠেছেন শের ই বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের এনটোমোলোজি বিভাগের প্রফেসর আব্দুল লতিফ। নতুন ওই পোকার ছবিটি তিনি কৃষিসম্প্রসারণ অধিদফতরের বাংলাদেশ ফাইটোস্যানিটরী সামর্থ শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের কনসালটেন্ট (পিআরএ) কৃষিবিদ মো. আহছান উল্যাকেও পাঠিয়েছেন। কমলা রং এর পোাকটি লম্বায় ৫ থেকে ৬ মিলিমিটার বা তারও বেশি। পোকাটির বিস্তারিত জানার জন্য চেষ্টা চলছে।

প্রফেসর আব্দুল লতিফ বলেন, বিগত ১০ বছরে বিভিন্ন বিদেশি উদ্ভিদ, সরঞ্জাম ও যানবাহনের মাধ্যমে বাইরের দেশ থেকে এসেছে জায়ান্ট মিলিবাগ ও লিফ মাইনারসহ সহ অনেক ধরণের পোকা। কুয়ারেন্টাইন(উদ্ভিদ সংগনিরোধ) ব্যবস্থার সীমাবদ্ধতা বা দুর্বলতায় বন্ধ করা যায়নি বিদেশি পোকা আসার দরজাগুলো। দেশের বিভিন্ন সীমান্তের চেকপোষ্ট, বিমানবন্দর ও নৌপথ দিয়ে আনা উদ্ভিদের চারা, কলম, বীজ, সরঞ্জাম এবং যানবাহনের সঙ্গে আসছে এসব পোকা।

একথা স্বীকার করে কৃষিবিদ মো. আহছান উল্যা বলেন, দরজা খোলা। ভাবখানা এমন যে, পোকা যত আসে আসুক। কীটনাশক স্প্রে করে সব মেরে ফেলবো। আসলে শুধু সরকার ও প্রশাসনের পক্ষে বিদেশ থেকে ক্ষতিকর পোকা আসা বন্ধ করা যাবেনা। এব্যাপারে সবাইকে সচেতন হতে হবে।

তিনি বলেন, স্প্রে করা ছাড়া আমাদের সামনে তেমন কোনো পথ খোলা নেই। থাকলেও আমরা সেপথে যেতে পারছিনা। কীটনাশক ব্যবহার না করেও বিশ্বের নানা দেশ পোকামাকড় দমনে সফল হয়েছে। ক্লাসিকাল বায়োলজিকাল কন্ট্রোল( এক ধরণের পোকা দিয়ে আরেক ধরণের পোকা দমন), ট্রাপ ও ভাল বীজের ব্যবহারসহ নানা কৌশলে পোকা দমন সম্ভব।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ