প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কিশোরগঞ্জ-১ আসন
সৈয়দ আশরাফের আসনে প্রার্থী হতে পারেন মশিউর রহমান

মাহমুদুল হাসান, কিশোরগঞ্জ : আওয়ামীলীগ সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম গুরুতর অসুস্থ। কিশোরগঞ্জ-১ (সদর-হোসেনপুর) আসনে তিনবারের এই সংসদ সদস্য দীর্ঘদিন ধরে বিদেশে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এদিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনও ঘনিয়ে আসছে। এ অবস্থায় তিনি যদি প্রার্থী হতে না পারেন তাহলে কিশোরগঞ্জ-১ আসনে নৌকার হাল কে ধরবেন, তা নিয়ে নতুন করে শুরু হয়েছে নানামুখী আলোচনা।

অন্যদিকে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের স্বজনরা মনে করছেন, আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক দ্রুতই সুস্থ হয়ে দেশে ফিরে আসবেন। স্থানীয় দলীয় নেতাকর্মীদের বিবেচনায় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের অনুপস্থিতিতে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে তরুণ আওয়ামী লীগ নেতা কৃষিবিদ মশিউর রহমান হুমায়ূনের নামটি শোনা যাচ্ছে খুব জোরে শোরে।

এ আসনে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন রাজনৈতিক কার্যক্রম ও সভা-সমাবেশ পরিচালনা করে আসছেন তিনি। অনেক নেতাকর্মী মনে করছেন, দলের পরিশ্রমী ও নেত্রীর বিশ্বস্ত সৈনিক হিসেবে ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক স্কুল ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ সম্পাদক এবং প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক সহকারী কৃষিবিদ মশিউর রহমান হুমায়ূন প্রার্থীতা করতে পারেন।

তবে কোনো কারণে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম প্রার্থী না হলে বিকল্প হুমায়ুনেই আস্থা রাখতে চান স্থানীয়রা বলে জানান দলটির একাধিক নেতা-কর্মী। স্থানীয় রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, এ আসনে ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণের ক্ষেত্রেও সবচেয়ে বেশি সক্রিয় রয়েছেন কৃষিবিদ মশিউর রহমান হুমায়ূন। কিশোরগঞ্জ সদরের ১১টি ও হোসেনপুর উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এ আসন।

জেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানান, কিশোরগঞ্জ-১ আসনে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম অসুস্থতার কারনে যদি নির্বাচনে অংশ গ্রহন করতে না পারেন তাহলে বিকল্প ও গ্রহনযোগ্য প্রার্থী হিসেবে মশিউর রহমান হুমায়ূন রয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে তরুণ আওয়ামী লীগ নেতা কৃষিবিদ মশিউর রহমান হুমায়ূন, বলেন, তিনি কাউকে সরিয়ে প্রার্থী হওয়ার জন্য মাঠে নামেন নি। সবারই প্রিয় ও শ্রদ্ধেয় বর্তমান জাতীয় সংসদ সদস্য সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম আগামী নির্বাচনেও এ আসনে দলের মনোনয়ন লাভ করুন, সবার মতো তিনিও তা প্রত্যাশা করছেন। তবে যদি কোনো কারণে তিনি নির্বাচন না করেন, সে ক্ষেত্রে এই আসনে অন্য কারোর প্রার্থী হতে চাওয়াটা নিশ্চয়ই অন্যায় হবে না। আর এ বিবেচনা থেকেই তিনি সক্রিয় রয়েছেন। তবে দলের সিদ্ধান্তই তার কাছে চূড়ান্ত।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত