Skip to main content

সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরাই পরামর্শ দিচ্ছেন অনুমোদনহীন ফুড সাপ্লিমেন্ট কেনার

নাজনীন আফরোজ : রংপুরে ওষুধ প্রশাসনের তদারকির অভাবে বিক্রি হচ্ছে অনুমোদনহীন ফুড সাপ্লিমেন্টারিসহ নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত ওষুধ। সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরাই পরামর্শ দিচ্ছেন এসব অনুমোদনহীন ফুড সাপ্লিমেন্ট কেনার। সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, অনিয়ম বন্ধে ওষুধ প্রশাসনের দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। ওষুধ প্রশাসনের অভিযানে রংপুর মেডিকেল কলেজ মোড়ের একটি ওষুধের দোকান থেকে জব্দ করা হয় মেয়াদ উত্তীর্ণ ও অনিবন্ধিত ওষুধপত্র। কিন্তু অনিয়মিত অভিযান চালানো ফলে সুযোগ নিচ্ছে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী। বিক্রি করছেন অনুমোদনহীন ফুড সাপ্লিমেন্টারি সহ বিভিন্ন ওষুধ। স্থানীয় ওষুধ প্রশাসন কর্তৃপক্ষ জানায়, জনগণ সংকট আর বিচারিক ক্ষমতা না থাকায় অভিযান খুব একটা কাজে আসছে না। সীমিত আকারে যদি বিচারিক ক্ষমতা থাকতো তাহলে আমরা তাৎক্ষণিক কিছু বিচার করতে পারতাম বা অর্থদ- দিতে পারতাম। সেক্ষেত্রে আরও ফলপ্রসু হত আমাদের অভিযান। তবে ওষুধ প্রশাসনের তদারকি বাড়ানোর পাশাপাশি অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানালেন সংশ্লিষ্টরা। যতদিন পর্যন্ত ড্রাগস অথোরিটি সচেতন না হবে ততোদিন অবৈধ ওষুধ লেখা বন্ধ হবে না। ওষুধ প্রশাসন থাকলেও নেই তাদের কোনো ক্ষমতা প্রয়োগের শক্তি। কিছু অসাধু লোকের জন্য সাধারণ মানুষের জীবন পতিত হচ্ছে দুর্বিসহ যন্ত্রণায়। রংপুর বিভাগে মাত্র ৫ জন ড্রাগ সুপার দিয়ে চলছে ওষুধ প্রশাসনের তদারকির কাজ ফলে প্রতিনিয়ত প্রতারণার শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। সূত্র : ডিবিসি নিউজ