প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

৪৮ বছরে যাত্রীর চাপ বাড়লেও বাড়েনি বগির সংখ্যা

কান্তা আইচ রায় : স্বাধীনতার ৪৮ বছরে দেশের জনসংখ্য দ্বীগুনেরও বেশী হওয়ার পরও, বাড়েনি রেলের যাত্রী পরিবহনের সক্ষমতা। কমছে ট্রেনের বগির সংখ্যা, কিন্তু রেলপথে বাড়ছে যাত্রী চাপ। ফলে রেলওয়ে হিমশিম খাচ্ছে চাহিদার কম বগি দিয়ে বিপুল পরিমান যাত্রীর সেবা দিতে। এর ফলে ভোগান্তি বাড়ছে যাত্রীদের। বগি সংকটকে রেলের লোকসানের অন্যতম কারণ হিসেবে চিহ্নিত করে, তা বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা ।

আশে পাশের জেলাগুলো থেকে ঢাকায় প্রবেশ করা ট্রেনে তিল ধারণের ঠাঁই থাকে না। আসনের চেয়ে দাঁড়িয়ে থাকে দ্বীগুণ যাত্রী।

যাত্রীরা জানান, টিকিট কাটার পরেও সিট পাওয়া যায় না। দাঁড়ানোর জায়গা পর্যন্ত থাকে না। প্রতিদিনের চিত্র একই অবস্থা। একজন আরেক জনের শরীরের ওপর হেলে পড়ে।

এসব ট্রেনের দরজা, জানালা, ইঞ্জিন তো বটেই, ছাদের উপরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পাড়ি দেয় আসনের প্রায় সমপরিমাণ যাত্রী।

যাত্রীরা বলেন, ‘টিকিট কেটেছি। তারপরও নিরুপায় হয়ে আমি ছাদে উঠেছি। ভিতরে জায়গা নেই।’

১৯৬৯-৭০ সালে ট্রেনের বগি ছিল ১ হাজার ৬৪৩টি স্বাধীনতার ৪৮ বছরে বগির সংখ্যা বৃদ্ধি না পেয়ে সেখান থেকেই কমে দাড়িয়েছে ১হাজার ৪১০টিতে। আর তখনকার ৭ কোটি জনসংখ্যা এখন ১৬ কোটি ছাড়ালেও, বাড়েনি বগির সংখ্যা। ফলে টিকিট কেটেও এখন যায়গা হয়না বগির ভেতর।

১৯৬৯-৭০ সালে রেলওয়ে যাত্রী পরিবহন করেছিল ৭ কোটি, এখনও আছে সেই ৭ কোটির ঘরেই। যোগাযোগ বিশেষজ্ঞরা মনে করেন বগি সংকটের কারনে প্রতিবছর রেলের লোকসানের পাল্লা বাড়ছে।

যোগাযোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. শামসুল হক বলেন, ‘আমার লোকসানের জন্য রাজস্ব যদি বাড়াতে হয় তাহলে কী করতে হবে ? বগির সংখ্যা বাড়াতে হবে। এই দিকে গুরুত্ব না দিয়ে আমরা অবকোঠামোর উন্নয়নে নজর বেশি দিয়ে দিয়েছি।’

গত দশ বছরে ২৭০টি নতুন বগি কেনা হয়েছে জানিয়ে রেলপথ মন্ত্রী শোনালেন, পরিকল্পনার কথা।

রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক বলেন, ‘১৫০টি কোচ অতি দ্রুত আমাদের বহরে যোগ হতে যাচ্ছে।’

বগি কেনার এই প্রকল্পটি ২০১৬ সালের, দুই বছরে কোন অগ্রগতি না হলেও বরাদ্দকৃত টাকার খরচ হয়ে গেছে প্রায় দশ কোটি। সূত্র : সময় টিভি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ