প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাজনীতিতে সংলাপ উদ্দীপনা ও শেখ হাসিনার উদারতা

প্রফেসর ড. এম. শাহ্ নওয়াজ আলি : আওয়ামী লীগ গণমানুষের দল। মানুষকে সঙ্গে নিয়েই চলে এ দলটি। গণতন্ত্র করে সমর্থন করে। গণতন্ত্রের জন্য কাজ করে। মত-ভিন্নমতে বিশ^াস করে। আওয়ামী লীগ, শেখ হাসিনা কিংবা প্রগতিশীল মানুষেরা যে গণতন্ত্র, বহুমত-ভিন্নমত ও সংলাপে বিশ^াস করে এর প্রতিফলন দেখা গেলো জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপ প্রস্তাব গ্রহণের মধ্যদিয়ে। প্রধানমন্ত্রীর সঠিক সিদ্ধান্তটিই নিয়েছেন। আওয়ামী লীগের মধ্যে যে উদারতা মানুষকে ভালোবাসার, তাদের অ্যাকোমোটেড করার তার প্রতিফলন সংলাপে বসার সিদ্ধান্ত। সংলাপে খোলা মন নিয়ে দলগুলোকে অংশগ্রহণ করতে হবে। সংলাপ প্রস্তাব গ্রহণের মধ্যে আওয়ামী লীগ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদারতা ও গণমানুষের প্রতি শ্রদ্ধাবোধের প্রতিফলন ঘটেছে।

এই প্রতিফলন দেশের মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য ও ইতিবাচক বিষয়। বঙ্গবন্ধুকন্যা গণতন্ত্রের একজন সৈনিক। তার পিতা গণতন্ত্রকে বুকে ধারণ করে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাঙালি জাতিকে একটি স্বাধীন ভ’খ- উপহার দিয়েছিলেন। আজকে বাংলাদেশ সফল, প্রতিষ্ঠিত একটি দেশ। একটি অপার সম্ভাবনার ক্ষেত্র। এই বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। এ দেশের মানুষের মধ্যে সুখ-শান্তি বিরাজমান। এ বাস্তবতা বিশ^ এখন জানে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখন বিশে^র নেতৃত্বস্থানীয় নেতাদের একজন। প্রধানমন্ত্রী তার ভাবমূর্তি, কাজকর্ম, প্রচেষ্টা, নারীর ক্ষমতায়ন, সুশাসন দিয়েছেন জাতিকে। তার মতো একজন বিশ^নেত্রীর কাছ থেকে সংলাপ প্রস্তাব গ্রহণ যে মানসিকতাই প্রত্যাশিত ছিলো।

সংলাপ প্রস্তাব গ্রহণ করা অতটা সহজ ছিলো না শেখ হাসিনার জন্য। কারণ আমরা স্মরণ করতে পারি, প্রধানমন্ত্রী বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক অফিসে একবার গিয়েছিলেন, তার ছেলের মৃত্যুকে শোক জানাতে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীকে দেখা দেননি তিনি। জাতি তার এ আচরণ ভোলেনি। এমন আচরণ করার পরও আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধুকন্যার পক্ষ থেকে সংলাপকে গুরুত্ব দেওয়া, সংলাপ প্রস্তাব মেনে নেওয়া বাংলাদেশের মানুষের জন্য স্বস্তিদায়ক। রাজনৈতিক ময়দানে সুবাতাস বইবার লক্ষণ। কিন্তু সুবাতাস মানে এই নয়, বাংলাদেশের স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ, ভবিষ্যৎ ধূলিসাৎ করে এমন প্রস্তাব এনে সংলাপ পরিবেশ নষ্ট করা। এমনটি করা ঠিক হবে না।

দেশের গণতন্ত্র, সংবিধান, মুক্তিযুদ্ধের মধ্যে থেকে সংলাপের মাধ্যমে ভালো কিছু বের হয়ে আসবে। এবং সেই সংলাপকে আমরা স্বাগত জানাবো।

লেখক : সদস্য, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন