প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সংলাপে সুফল চায় আওয়ামী লীগ

সমীরণ রায়: জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে আওয়ামী লীগ সংলাপে বসছে কাল বৃহস্পতিবার। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে সংলাপ থেকে ইতিবাচক ফল ও জনগণকে একটি বার্তা দিতে চায় ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। ফলে ঐক্যফ্রন্টের সংলাপের দাবি মেনে নিয়ে নির্বাচনকে অর্থবহ ও কার্যকর করার পক্ষে রয়েছে দলটি।

দলের নীতিনির্ধারক পর্যায়ের নেতারা মনে করেন, কোনো চাপের মুখে নয়, গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক ধারাকে অব্যাহত রাখতে ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপে বসছে আওয়ামী লীগ। ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপ ও আলোচনার পাশাপাশি গণভবনে নৈশভোজের আয়োজন রাখা হয়েছে। তবে কী কথা হতে পারে সংলাপে, এ বিষয়ে সব কিছু জানেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
এক চিঠিতে সংলাপের জন্য বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গণভবনে ঐক্যফ্রন্টকে আমন্ত্রণ ও সময়সূচি জানিয়েছেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার পৌনে আটটায় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেনের ঢাকার বেইলি রোডের বাসায় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে সংলাপের আমন্ত্রণ জানিয়ে পাঠানো চিঠি নিয়ে যায় আওয়ামী লীগ।

চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী লেখেন, ‘সালাম ও শুভেচ্ছা নেবেন। আপনার ২৮ অক্টোবরের পত্রের জন্য ধন্যবাদ। অনেক সংগ্রাম ও ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে সংবিধানসম্মত সব বিষয় আলোচনার জন্য প্রধানমন্ত্রীর দ্বার সর্বদা উন্মুক্ত। তাই আলোচনার জন্য সময় চেয়েছেন, তারই পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ১ নভেম্বর সন্ধ্যা সাতটায় আপনাদের আমি গণভবনে আমন্ত্রণ জানাচ্ছি।’

এদিকে, মঙ্গলবার সচিবালয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, কোনো চাপের মুখে নয়, গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক ধারাকে অব্যাহত রাখতে ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপ হবে। ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপে খোলামেলা আলোচনা হবে। তাদের ৭ দফা দাবি ও ১১ দফা লক্ষ্য আলোচনার টেবিলে তোলা হবে। টেবিলেই সিদ্ধান্ত হবে।
তিনি বলেন, ঐক্যফ্রন্টের সাত-দফার মধ্যে কয়েকটি দফা আছে, যা সংবিধান সম্পর্কিত। দুয়েকটি আছে আইন-আদালতের সঙ্গে সম্পর্কিত। দুয়েকটি আছে নির্বাচন কমিশন সম্পর্কিত। তারা লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের কথা বলছেন, সেটা তারা এখনো পাচ্ছেন। সভা-সমাবেশ করছেন। তফসিল ঘোষণা হয়ে গেলে এসব তখন নির্বাচন কমিশন দেখবে।

অন্যদিকে মঙ্গলবার আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণের চিঠি নিয়ে ড. কামালের বাসায় যান। ড. কামালের হাতে চিঠি তুলে দেন তিনি। এ সময় ড. সোবহান বলেন, গত ২৮ অক্টোবর ঐক্যফ্রন্টের নেতা ড. কামালের স্বাক্ষরিত একটি চিটি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হয়। আমি অফিসিয়ালি সেটা গ্রহণ করেছি। সেই চিঠির জন্য প্রধানমন্ত্রী ধন্যবাদ জানিয়েছেন। এরই আলোকে তিনি একটি চিঠি আমার মাধ্যমে ড. কামালের কাছে পাঠিয়েছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ