প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মালিক-শ্রমিক ঐক্যের নামে মাফিয়া চক্র আছে

রুহিন হোসেন প্রিন্স : শ্রমিকরা নিজস্ব দাবীতে নিয়ম অনুযায়ী যদি আন্দোলন-সংগ্রাম করে বা ধর্মঘট ডাকে সে বিষয়ে কোনো দ্বিধা-দন্দ্ব নেই। কিন্তু আমরা এবারে যে আন্দোলন দেখলাম এটা প্রকৃতপক্ষে শ্রমিকদের কোনো ধর্মঘট ছিলো না। এই মুহূর্তে পরিবহন জগতে কোনো আন্দোলন নেই। এইখানে মালিক-শ্রমিক ঐক্যের নামে একটা মাফিয়া চক্র আছে। এই মাফিয়া চক্র ধর্মঘট ডাকলে যা যা হওয়ার কথা ছিলোূ সেগুলো হয়েছে।  ফলে ধর্মঘটের নামে নিজেরাই একটা অরাজকতা কায়েম করেছে। সাধারণ মানুষকে অত্যাচার করেছে।

কাজেই এই কাজগুলোই স্বাভাবিক ছিল। এই মাফিয়া চক্রের সাথে আমরা দেখি মালিক নামধারী প্রতিনিধি, যিনি তিনি এই সরকারের মন্ত্রী, আবার শ্রমিকের প্রধান প্রতিনিধি যিনি তিনিও এই সরকারের মন্ত্রী। সুতরাং এই দায়িত্ব সরকারের কাঁধেই পড়বে। কেননা এই মন্ত্রীসভার দুজন মন্ত্রী হচ্ছেন প্রধানসারির নেতা। তাই ধর্মঘটের নামে যে অরাজকতা ঘটলো তারা এই দায় এড়াতে পারেন না।

আমরা অনেকদিন ধরেই বলে আসছি,  শ্রমিক-মালিক ঐক্যের নামে যে মাফিয়াতন্ত্র কায়েম হয়েছে সেখানে শ্রমিকদের কোনো স্বার্থ নেই। এরা চাঁদাবাজ লুটেরা মালিকদের স্বার্থ রক্ষা করে। তাই আমরা মনে করি, এই কার্যক্রম ছিলো অন্যায়, অযৌক্তিক এবং গণবিরোধী। জনগণের পক্ষে এই সরকার ভূমিকা নিতে ব্যর্থ হয়েছে। জনগণকেই এই অরাজকতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হওয়া দরকার।

আমি শ্রমিক ভাইদের অনুরোধ করবোÑতারা এই ফাঁদে পা না দিয়ে বেরিয়ে আসবে। তাদের নিজস্ব দাবিতে ঐক্যবন্ধ হবে। শ্রমিক আন্দোলন গড়ে তুলবে এবং প্রয়োজনে মালিকের যে অত্যাচার-অনাচার দুর্র্নীতি তার বিরুদ্ধে তারা আন্দোলন গড়ে তুলবে। দরকার হলে ধর্মঘট করবে, তখন আমরা আমাদের অবস্থান নিয়ে তাদের পাশে থাকবো।

পরিচিতি : সম্পাদক, সিপিবি/মতামত গ্রহণ : লিয়ন মীর/সম্পাদনা : রেআ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ