Skip to main content

মির্জাগঞ্জে জেলেদের মুখে হাসির ঝিলিক

সোহাগ হোসেন, মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী) : দীর্ঘ ২২ দিন পরে নিষেধাজ্ঞার শেষে নদীতে মাছ ধরতে পেরে পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে জেলেদের মাঝে বিরাজ করছে অবিরাম আনন্দ ও মুখে মুখে হাসির ঝিলিক। উৎসবে মেতে উঠেছে উপজেলার বিভিন্ন জেলে পল্লীগুলো। জালে ধরা পড়ছে অসংখ্য রূপালী ইলিশ। মৎস বিভাগের তথ্যনুযায়ী গত ০৭ থেকে ২৮শে অক্টোবর সারা দেশে সাগর নদ-নদীতে মাছ আহরন, পরিবহন ও সংরক্ষণ নিষিদ্ধ ছিল। উপজেলা মৎস অফিস সূত্রে জানাযায়, নিষেধাজ্ঞা চলাকালীণ সময় অভিযান চালিয়ে প্রায় ৭ লক্ষ ৭৪ হাজার টাকার মূল্যের ৩৮ হাজার ৭০০ মিটার অবৈধ জাল উদ্ধার সহ দুই জেলেকে দুই বছরের কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। নিষেধাজ্ঞা ও অভিযান শেষে মনের আনন্দে মাছ শিকারে ব্যস্ত হয়ে উঠেছে মির্জাগঞ্জের জেলেরা। আর জেলেদের জালে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে রূপালী ইলিশসহ নান প্রজাতির মাছ। উপজেলার মনোহারখালী, সুন্দ্রকালিকাপুর, পিপড়াখালী, তালতলী, ভিকাখালী, রামপুর, মির্জাগঞ্জ, গোলখালী, কাকড়াবুনিয়া, ভয়াং ও আয়লাসহ বিভিন্ন এলাকায় পায়রা নদীতে নৌকা ভাসিয়ে রাতভর মাছ শিকার করছে জেলেরা। মঙ্গলবার বিকালে মির্জাগঞ্জ পায়রা নদীর পাড়ে গেলে দেখা যায় যে, শত শত ট্রলার ও নৌকা মাছ ধরার জন্য জেলেরা প্রস্তুতি নিচ্ছে। পায়রা নদীতে মাছ ধরতে আসা- মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন, মোঃ শহীদ জোমাদ্দার, মোঃ অসীম ও আজিজ হাওলাদারসহ অন্যান্য জেলেরা জানান, এতদিন তারা মাছ না ধরায় নদীতে প্রচুর ইলিশ পড়েছে। ইলিশের প্রজনন মৌসুম হওয়ায় ২২ দিন দেশের সমুদ্র ও সকল নদীতে মাছ ধরা, বেচা-কেনা, মজুদ এবং পরিবহন নিষিদ্ধ করেছিল সরকার। মির্জাগঞ্জ উপজেলার প্রায় ১ হাজারের ও বেশী জেলে এই ২২ দিন নদীতে ইলিশ সহ সকল ধরনের মাছ ধরা থেকে বিরত ছিল। তাই অনেকদিন পরে মাছ ধরতে পারায় আমার খুবই আনন্দিত।

অন্যান্য সংবাদ