প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সংবিধানের ভেতরেই ৭ দফার অনেকাংশ মানা সম্ভব : নাঈমুল ইসলাম খান

জুয়েল খান : ‘আমাদের নতুন সময়’ এর সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খান বলেছেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা যে ৭ দফা দাবি দিয়েছেন তার অনেকাংশ সংবিধানের মধ্য থেকে পূরণ করা সম্ভব। তবে ঐক্যফ্রন্টের নেতাদেরকেও তাদের প্রত্যাশা সীমিত রাখতে হবে। একাত্তর টেলিভিশনে গতকাল সোমবার রাতে একাত্তর জার্নালে তিনি একথা বলেন।

নাঈমুল ইসলাম খান বলেন, দুপক্ষ যতোটা উদারতা দেখাবে আলোচনা ততোটাই ফলপ্রসু হবে। এখন যে আলোচনা হতে যাচ্ছে সেটা খালেদা জিয়ার সাথে নয় , ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্টের সাথে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অধিকাংশ নেতারাই বঙ্গবন্ধুর নাম নিয়ে আলোচনা করেন যেটা আওয়ামী লীগ ইতিবাচকভাবে দেখে। স্বাধীন বাংলাদেশে বিরোধীদল যেমন হওয়া উচিত ঠিক তেমনি একটা ধারণা দেন ঐক্যফ্রন্টের নেতারা।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ৭ দফার বিষয়ে তিনি বলেন, ঐক্যফ্রন্টের ৭ দফার মধ্যে কিছু কিছু দফা এমনিতেই রাখা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীকে আন্তরিকভাবে বোঝানো হলে এই দফাগুলোতে পরিবর্তন আনা সম্ভব। যেমন: ১. নির্বাচনকালীন সরকারে পরিবর্তন আনা সম্ভব, তবে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন হওয়ার সুযোগ নেই। ২. ইভিএম ব্যবহার নিয়ে একটা সমঝোতা হতে পারে যে, ইভিএম এতো কম পরিসরে ব্যবহার হবে এটাতে নির্বাচনের ওপর কোনো ধরনের প্রভাব পড়বে না। ৩. সংবাদপত্রের স্বাধীনতা, মতপ্রকাশের স্বাধীনতা, জনসভা করার স্বাধীনতা- এই দাবিগুলো কিন্তু ইতিমধ্যে কার্যকর হতে দেখা যাচ্ছে এবং আগামীতে আরো বাড়বে। ৪. বিভিন্ন আন্দোলনে যারা গ্রেফতার হয়েছে তাদেরকে মুক্তি দেয়া- অধিকাংশ বন্দিদের জামিন হয়ে গেছে বাকি যারা আছে তারাও মুক্ত হতে পারে। ৫. খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি- খালেদা জিয়ার মুক্তিও কিন্তু নির্বাচনের আগে আদালতের মাধ্যমে দেয়া হয়তো সম্ভব হতে পারে তবে সেটা আলোচনার ওপর নির্ভর করছে। আর বাকি যে দফাগুলো আছে সেগুলো অনেকাংশেই আওয়ামী লীগের স্বার্থক্ষুন্ন না করেই পূরণ করা সম্ভব।

এক প্রশ্নের জবাবে নাঈমুল ইসলাম খান বলেন, খালেদা জিয়ার জামিন না হয়েও, তার ইচ্ছামতো ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তির সুযোগ দেয়া অথবা নির্বাচনকালীন সময় খালেদা জিয়াকে কারাগারে না রেখে ইউনাইটেড হাসপাতালেই রাখা। তবে এগুলো নির্ভর করছে আলোচনা কতটা এগোয় তার ওপর।

তিনি আরো বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অধিকাংশ দাবি পূরণ করা সম্ভব আওয়ামী লীগের স্বার্থক্ষুন্ন না করে, সংবিধানের প্রতিপক্ষ না হয়ে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এবং আওয়ামী লীগের মধ্যে যে আলোচনা হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে তার ফলে আমাদের দেশের রাজনীতিতে একটা ইতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে আশা করা যায়। সুত্র: একাত্তর টেলিভিশন, সম্পাদনায়: শাশ্বত জামান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত