প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এ রায় সকল রাজনীতিবিদদের জন্য ম্যাসেজ: অ্যাটর্নি জেনারেল

এস এম নূর মোহ্ম্মদ : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় হাইকোর্টের রায়টি সকল রাজনীতিবিদদের জন্য একটি ম্যাসেজ বলে মনে করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। এই রায় নিশ্চই একটি ইঙ্গিত বহন করে যে, রাষ্ট্রক্ষমতায় থেকে কেউ যদি অন্যায় করে সে কোন আইনের উর্ধ্বে থাকতে পারে না। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায় ঘোষণার পর মঙ্গলবার নিজ কার্যালয়ে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ মন্তব্য করেন।

খালেদা জিয়ার আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন কিনা তা জানতে চাইলে মাহবুবে আলম বলেন, কেউ সাজাপ্রাপ্ত হলে নিশ্চই পারবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত সাজা বাতিল না হয়। সাজার দুই রকম ব্যাখ্যা রয়েছে। এক. আপিল করে সাজা বাতিল করা এবং দুই. সাজার কার্যকারিতা স্থগিত করা। এখানে আমার অভিমত হলো, কেউ নির্বাচন করতে চাইলে তাকে সাজা বাতিল করতে হবে। তবে সাজা সাময়িক স্থগিত করে নির্বাচন করতে পারবে না। ফলে খালেদা জিয়ার নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। আপিল শুনানি অবস্থায় থাকলেও হবে না, যে পর্যন্ত সাজা বাতিল না হয়।

এর আগেও অনেকেই সাজা স্থগিত রেখে নির্বাচন করেছেন সেক্ষেত্রে খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত রেখে নির্বাচন করতে পারবেন কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, এটা অনেকেই আইনের নানান ফাকফোকর দিয়ে করতে পারেন। কিন্তু আমার ব্যাখ্যা হলো যে, কেউ যদি দণ্ডপ্রাপ্ত হন সেক্ষেত্রে তার দণ্ড যতক্ষণ না বাতিল হবে, সে পর্যন্ত তিনি মুক্ত মানুষ হিসেবে পরিগণিত হতে পারেন না। আবার সাজা স্থগিত হলে আপাদত জেল খাটা থেকে হয়ত অব্যাহতি পেতে পারেন, কিন্তু নির্বাচন করতে পারবেন না।

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, সাধারণত হাইকোর্টের রায়ের পর ৩০দিনের মধ্যে আপিল বিভাগে আপিল করার বিধান রয়েছে। তবে আপিল করা হবে কিনা সে বিষয়ে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা সিদ্ধান্ত নিবেন। এটা তাদের বিষয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ