Skip to main content

ইন্দোনেশিয়ায় ১৮৯ আরোহী নিয়ে বিমান বিদ্ধস্ত; ৬ লাশ উদ্ধার

আসিফুজ্জামান পৃথিল : ইন্দোনেশিয়ায় ১৮৯ যাত্রী ও ক্রু নিয়ে লায়ন এয়ারের একটি একদম নতুন বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজ বিদ্ধস্ত হয়েছে। সর্বশেষ প্রাপ্ত সংবাদ অনুযায়ী জাকার্তা সাগর থেকে ৬টি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আরোও মৃতদেহের সন্ধানে অভিযান চালাচ্ছেন উদ্ধারকর্মীরা। আশঙ্কা করা হচ্ছে উড়োজাহাজটির কোন আরোহীই বেঁচে নেই।রাজধানী জাকার্তা থেকে ইন্দোনেশিয়ার একটি দ্বীপ বাঙ্কার পাঙ্কাল পিনাং এর উদ্দেশে যাত্রা করার ১৩ মিনিটের মাথাতেই সাগরে বিদ্ধস্ত হয়। ইন্দোনেশিয়ার জাতিয় উদ্ধার সংস্থা বাসারনাথ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। এই ১৮৯ জনের মধ্যে ১৮১ জন ছিলেন যাত্রী। বাকিদের ২ জন বিমান চালক এবং ৬ জন কেবিন ক্রু। যাত্রীদের ৩জন ছিলো শিশু। উদ্ধারকৃত দেহগুলি পূর্ব জাকার্তার একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে বলে বাসারনাসের পরিচালক সুরইয়ো আজি নিশ্চিত করেছেন। আজি একটি সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন তারা বিমানের লেজের ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পেয়েছেন। ফলে লাশ খুঁজে পাওয়া অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে। তবে উদ্ধারকারি দলকে উঁচু এবং শক্তিশালী ঢেউ এর বিরুদ্ধে কাজ করতে হচ্ছে। ১৫০ মাইল এলাকা জুড়ে উদ্ধার অভিযান চলছে বলে আজি নিশ্চিত করেছেন। এই অভিযানে পানির নিচের রোবট ব্যবহার করা হচ্ছে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় সস্তায় ভ্যমণের জন্য লায়ন এয়ার বেশ জনপ্রিয়। আকারে বেশ বড় এই বেসরকারি বিমানসংস্থাটি নিজেদের ফ্লিট বদলের অংশ হিসেবে সম্প্রতি এই বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স৮ বিমানটি ক্রয় করেছিলো। বিমানটি মাত্র ৮০০ ঘন্টা উড়েছে। তবে লায়ন এয়ারের সিইও এডওয়ার্ড সিরাইত জানিয়েছেন আগের রাতেই বিমানটিতে কিছু সমস্যা দেখা দিয়েছিলো। তবে সমস্যাটি প্রকৌশলীরা সনাক্ত করে মেরামত করেছিলেন। নতুন একটি উড়োজাহাজে কেনো এরকম সমস্যা হলো তা তদন্ত করা হবে জানিয়েছেন তিনি। ফ্লাইটটির ক্যাপ্টেন বাভি সুনেজার ৬০০০ এর বেশি উড্ডয়ন ঘন্টা আর সহ-পাইলট হারভিনোর ৫ ঘন্টার বেশি উড্ডয়ন অভিজ্ঞতা রয়েছে। এর আগে ২০১৩ সালে লায়নের একটি বিমান ১০৮ যাত্রী নিয়ে সাগরে বিদ্ধস্ত হলেও কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। এদিকে ২০০৪ সালে সংস্থাটির একটি বিমান বিদ্ধস্ত হয়ে ২৫ জন নিহত হন। সিএনএন

অন্যান্য সংবাদ