প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অনুমোদন পেলো পুলিশের ব্যাংক

রমজান আলী : অনুমোদন পেলো পুলিশের ব্যাংক, অপেক্ষায় আরও তিনটি ব্যাংক। ব্যাংকিং খাত নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেই রাজনৈতিক বিবেচনায় আরও চারটি নতুন ব্যাংকের অনুমোদন দিতে চায় বাংলাদেশ ব্যাংক। এর মধ্যে কমিউনিটি পুলিশ ব্যাংকের চূড়ান্ত অনুমোদন হলেও বাকি তিনটি ব্যাংকের বিষয়ে এখনও আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত হয়নি। বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম সোমবার এই তথ্য জানান। তিনি বলেন, আজ রাতে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ সভায় কমিউনিটি পুলিশ ব্যাংককে চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে প্রস্তাবিত বাকি তিনটি ব্যাংক দ্য বেঙ্গল ব্যাংক, পিপলস ব্যাংক, দ্য সিটিজেন ব্যাংকের বিষয়ে এখনও অনুমোদনসংক্রান্ত চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। নতুন অনুমোদন পাওয়া ব্যাংকগুলোর মালিকানায় থাকছেন সরকারের মন্ত্রী,এমপি ও সরকারি দল সমর্থক ব্যবসায়ীরা।

জানা গেছে, পর্যায়ক্রমে এই চারটি ব্যাংকেরই লাইসেন্স দেওয়া হবে। বর্তমানে দেশে ৫৮টি তফসিলভুক্ত ব্যাংক রয়েছে। কমিউনিটি পুলিশ ব্যাংক চূড়ান্ত অনুমোদন পাওয়ায় এখন তফসিলি ব্যাংকের সংখ্যা দাঁড়ালো ৫৯টিতে। আর বাকি তিনটি ব্যাংক অনুমোদন পেলে এই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াবে ৬২টিতে। এছাড়াও আরও কিছু ব্যাংক প্রতিষ্ঠার জন্যও বাংলাদেশ ব্যাংকে আবেদন জমা রয়েছে বলেও জানা গেছে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ব্যাংক অর্ডার ও ব্যাংক কোম্পানি আইন অনুযায়ী ব্যাংকের লাইসেন্স দেওয়ার পুরোপুরি এখতিয়ার বাংলাদেশ ব্যাংকের হাতে। কিন্তু নতুন ব্যাংকের লাইসেন্স পাওয়া সরকারের ইচ্ছের ওপর নির্ভরশীল।
কারা পাচ্ছেন নতুন চার ব্যাংক

কমিউনিটি ব্যাংক অব বাংলাদেশের মালিক হচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ সদস্যরা। পুলিশ সদস্যদের কল্যাণ ফান্ডের টাকায় এই ব্যাংকটি পরিচালিত হবে। বেঙ্গল ব্যাংকের (বাংলা ব্যাংক) মালিক হচ্ছেন বেঙ্গল গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দিন। তিনি দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই’র সহ-সভাপতি ছিলেন। তিনি আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মোরশেদ আলমের ভাই।

দ্য সিটিজেন ব্যাংকের মালিক হলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের মা জাহানারা হক। অন্যদিকে,পিপলস ব্যাংকের প্রধান উদ্যোক্তা চট্টগ্রামের বাসিন্দা যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী এম এ কাশেম, যিনি যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত