প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নিবন্ধন না থাকলেও জোটের প্রার্থী হতে চায় জামায়াত

সাজিয়া আক্তার : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে বাগেরহাট-৩ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা এখন মাঠে। আওয়ামী লীগের টিকিটের দাবিদারই বেশি। তার বিএনপি নেতাকর্মীরা চাইছেন, এবার দলের প্রার্থী এককভাবে নির্বাচন করুক। আর দলের নিবন্ধন না থাকলেও, জোটের প্রার্থী হতে চায় জামায়াত। সূত্র : এটিএন টেলিভিশন

মোংলা ও রামপাল, এই দুই উপজেলা নিয়ে বাগেরহাট-৩ আসন। এ অঞ্চলে মোংলা সমুদ্রবন্দর, ইপিজেড এবং কয়েক’শ শিল্পপ্রতিষ্ঠান। অর্থনৈতিক বিবেচনায় খুবই গুরুত্বপূর্ণ এই আসন। ১৯৯১ সাল থেকে এ আসনটি আওয়ামী লীগের কব্জায়। বাগেরহাট-৩ আসন থেকে ৫ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তালুকদার আব্দুল খালেক। তিনি খুলনার সিটি মেয়র নির্বাচিত হলে তার স্ত্রী হাবিবুর নাহার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। তাই আসছে নির্বাচনেও তিনিও আওয়ামী লীগের টিকেটের জোরালো দাবিদার ।

এদিকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন দাবি করে মাঠে নেমেছেন অভিনেতা শাকিল খান। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন তিনি।

শাকিল খান বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদি আমাকে নমিনেশন দেন, তাহলে আমি মোংলাবাসির হয়ে কাজ করবো।

বিএনপি-জামায়াত জোট থেকে গেলো সবকটি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন জামায়াত প্রার্থী। তবে ৫ম থেকে ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বারবার পরাজয়ের কারণে এবার জামায়াত-বিমুখ বিএনপি। তাই এবার নিজ দলের প্রার্থী চান স্থানীয় নেতারা।
যদিও জামায়াতের অভিলাষ, জোট এবারো তাদের প্রার্থীই দেবে।

জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় সদস্য আবদুল ওয়াদুদ বলেন, আমরা আশা করছি এই সিট জামায়াতের ভাগেই আছে এবং জামায়াতই এখানে নির্বাচিত হবে।
ভোটারা অবশ্য সতর্ক, কোনো প্রতিশ্রুতিবাদ নয়, যোগ্য প্রার্থীই চান তারা।
স্থানীয় ভোটাররা বলছেন, অতীতে যেভাবে এসেছে ভবিষ্যতেও যেনো এইভাবেই কাজ অব্যাহত থাকে। সৎ ও যোগ্য প্রার্থীকেই নমিনেশন দেয়া হোক, এটাই তাদের চাওয়া। নির্বাচন শেষ হলে কাউকে খুঁজে পাওয়া যায় না। ভাল প্রার্থী আসুক, তাকেই আমরা ভোট দিব, তাকেই আমরা চাই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ