প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তফসিল ঘোষণার আগেই ঐক্যফ্রন্টর সাথে সংলাপে বসবে আ.লীগ: কাদের

আহমেদ জাফর : চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা দীর্ঘদিন ধরেই আওয়ামী লীগের সাথে সংলাপে বসার আহ্বান জানিয়েছেন। গতকাল আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে চিঠি দেওয়ার পরেই আজ প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর অনির্ধারিত এক আলোচনায় সভায় ড. কামাল হোসেনের চিঠি নিয়ে কথা হয়।

মন্ত্রিসভার বৈঠকে সবার সম্মতিক্রমে জাতীয় ঐক্যের ঐক্যফ্রন্টের সাথে সংলাপে সবার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন আওয়াামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সোমবার (২৯অক্টোবর) ধানমন্ডি আওয়ামী লীগের সভাপতি রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে সাংবাদিকদের একথা জানান তিনি।

তিনি বলেন, দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সকল নেতাকর্মী সম্মতিক্রমেই সংলাপের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। নির্বাচনী শিডিউল ঘোষণার আগেই এই সংলাপ হতে পারে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দরজা কারো জন্যে বন্ধ নয়। দীর্ঘদিন ধরেই ঐক্যেফ্রন্ট সংলাপে বসার কথা বলেছে। তাই আওয়ামী লীগের দলের সকল নেতাকর্মীর সাথে আলাপ করে সবার সম্মতিক্রমেই প্রধানমন্ত্রী দরজা সবার জন্য খোলা রাখা হয়েছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, তবে কারো চাপের মুখে নত স্বীকার করে এই সংলাপ হচ্ছে না। এই সংলাপ হচ্ছে আগামী নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু গ্রহণযোগ্য সকল দলের অংশগ্রহণে একটি সুন্দর নির্বাচন করার লক্ষ্যে। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন সবার জন্য তার দরজা খোলা আছে।

সংলাপের জন্য এখনো দিনক্ষণ সময় স্থান ঠিক করা হয়নি তবে খুব দ্রুতই এসব নির্ধারণ করে ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের জানিয়ে দেওয়া হবে।

এ নিয়ে ওবায়দুল কাদের সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘আমাদের দলের সভাপতি শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে ঐক্যফ্রন্ট একটি চিঠি দিয়েছে। দলের পক্ষে সেই চিঠি গ্রহণ করা হয়েছে। সেই চিঠিতে কি আছে তা পত্র-পত্রিকায় প্রকাশ পেয়েছে।
‘‘আমি সে বিষয়ে না গিয়ে বলতে চাচ্ছি, আজকে আমাদের মন্ত্রিসভার বৈঠক ছিল। বৈঠকের পর আমাদের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদেরকে ডাকেন এবং এ বিষয়ে আমাদের মতামত জানতে চান। অনির্ধারিত ওই বৈঠকে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত হয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সংলাপে বসবে।’’

‘‘তাদের চিঠিতে কিছু বিষয় অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের অনুষ্ঠানের লক্ষ্যের জন্য উল্লেখ করেছে, সেই সঙ্গে তাদের ৭ দফা দাবি এবং ১১ দফা লক্ষ্য জুড়ে দিয়েছে। আমরা আমাদের পক্ষ থেকে কাউকে সংলাপে ডাকিনি। ঐক্যফ্রন্টের নেতারা সংলাপ করতে চান।’’
গত রোববার নিরপেক্ষ সরকারের অধিনে জাতীয় নির্বাচনসহ ৭ দফা দাবি ও ১১টি লক্ষ্য সম্বলিত একটি চিঠি আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার কাছে পৌছে দেয়ার জন্য জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন স্বাক্ষরিত চিঠিটি আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে গিয়ে পৌঁছে হয়।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাছিম, আহমেদ হোসেন, দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ,সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল প্রমুখ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ