প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শ্রমিক ধর্মঘট
ফুলবাড়ীতে দুর্ভোগে সাধারন যাত্রী

রজব আলী, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) : সারা দেশের ন্যায় দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতেও শ্রমিক ধর্মঘটে দুর্ভোগে পড়েছে সাধারন যাত্রীরা, যাতায়াতের এখন একমাত্র ভরশা চার্জার চালিত ভ্যান-রিক্সা ও অটো রিক্সা। এতেও গুনতে হচ্ছে প্রয়োজনের তুলুনায় দ্বিগুন-তিনগুন ভাড়া।

এদিকে পরিবহন বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছে ব্যবসায়ী ও কৃষক। ধান-চাউল ও সবজি বহন করতে পারছেনা ব্যবসায়ীরা।পরিবহন করতে না পারায় ক্ষেতে নষ্ট হচ্ছে কৃষকের শীতকালিন সবজি। গত রবিবার থেকে শুরু হওয়া সারা দেশের শ্রমিক ধর্মঘটে এই দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে। শ্রমিক ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিন গতকাল সোমবার ফুলবাড়ী পৌরশহরের ঢাকামোড়, দিনাজপুরম রংপুর ও পার্বতীপুরগামী বাসষ্টান্ডে গিয়ে দেখা যায় সাধারন ডাত্রীদের দুর্ভোগ।

ঢাকামোড় বাসষ্টান্ডে দাড়িয়ে থাকা এক যাত্রী বলেন তিনি তার পরিবার নিয়ে রাজশাহী থেকে ট্রেন যোগে ফুলবাড়ীতে এসেছেন, এখান থেকে তিনি দিনাজপুর শহরে যাবেন, কিন্তু বাস নাই, এজন্য তাকে এক হাজার টাকা ভাড়া দিয়ে অটো রিক্সায় চেপে দিনাজপুর যেতে হচ্ছে। অথচ বাসসের ভাড়া তিন জনে মাত্র ১৮০ টাকা। একই কথা বলেন অপর যাত্রী শাহাদৎ আলী, তিনিও ট্রেন যোগে নাটোর থেকে এসেছেন এখান থেকে তাকে যেতে হবে দিনাজপুরে। পার্বতীপুর বাস ষ্টান্ডে দাড়িয়ে থাকা এক সরকারী কর্মকর্তা বলেন তাকে প্রতিদিন ১২০ টাকা ভাড়া দিয়ে চার্জার চালিত রিক্সায় অফিস যেতে হচ্ছে। একই অবস্থা বিরামপুর, রংপুরসহ আশপাশ এলাকার যাত্রীদের।

ফুলবাড়ী বাসষ্টান্ড গুলো ঘুরে দেখা যায় ষ্টান্ডে সারিবদ্ধ ভাবে দাড়িয়ে আছে আন্তঃজেলা চলাচলরত যাত্রীবাহীবাস গুলো। সেখান থেকে কোন যাত্রীবাহী বাস ছেড়ে যায়নি, এমনকি কোন মাইক্রোবাসও ভাড়া নিয়ে যায়নি। দিনাজপুর মটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের ফুলবাড়ী উপজেলা শাখার যুগ্ম সম্পাদক সেকেন্দার আলী দুলাল বলেন, শ্রমিকরা ফাঁশির আইন গলায় ঝুলিয়ে বাস চালাতে চায়না, তাই এই আইনের ধারা সংশোধন করার দাবীতে শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রিয় কমিটির ঘোষিত কর্মসূচি তারা পালন করছেন । শ্রমিক নেতা মেহেদুল ইসলাম বলেন এই কর্মসূচি শ্রমিকদের জিবন রক্ষার কর্মসূচি। তিনি আরো বলেন আমি একজন চালক, আমি অব্যহতি চাই, কারন আমি ফাঁশির মঞ্চে উঠতে চাইনা, একই কথা বলেন শ্রমিক নেতা এমদাদুল হক।

এদিকে বাস-ট্রাক চলাচল না করায ধান-চাউল, শাক-সবজি বহন করতে পারছেনা ব্যবসায়ীরা, ফলে কৃষকরা তাদের উৎপাদিত সবজি ক্ষেত থেকে তুলতে পারছেনা। কয়েক জন কৃষক বলেন পরিবহন ধর্মঘট আরো কয়েক দিন স্থায়ী হলে ক্ষেতেই তাদের শীতকালিন সবজি কপি-বেগুন নষ্ট হয়ে যাবে। এতে তারা বড়রকমের লোকশানে পড়বে। ফুলবাড়ী বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠান লাবলী ফুট ইন্ডাষ্ট্রিজ প্রাঃ লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালন মাহমুদ আলম লিটন বলেন, পরিবহন ধর্মঘটের কারনে তিনি তাদের উৎপাদিত আটা-ময়দা, চাউল বহন করে বাজারে সরবরাহ করতে পারছেনা। অপরদিকে ধান-গম মিলে আনতে পারছেনা, এই অবস্থা চলতে থাকলে ইন্ডাষ্ট্রিজ গুলো অচল হয়ে পড়বে। আর এর প্রভাব পড়বে সাধারন মানুষ ও দেশের অর্থনিিততে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ