প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পাকিস্তানের কাছে অস্ট্রেলিয়ার ধবল ধোলাইয়ের লজ্জা

স্পোর্টস ডেস্ক: দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এই ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় পাকিস্তান। শুরুটা দারুণ ছিল তাদের। দুই ওপেনার বাবর আজম এবং সাহিবজাদা ফারহানের ওপেনিং জুটিটা ছিল অসাধারণ। ১২.৫ ওভার পর্যন্ত জুটি গড়ে দলের জন্য ৯৩ রান সংগ্রহ করেছিলেন দুইজন।

অজি স্পিনার নাথান লায়নের বলে ক্যাচ দিয়ে ৩৮ বলে ৩৯ রানের ইনিংস খেলে ফিরেছিলেন ফারহান। তার বিদায়ের পর বেশিক্ষণ উইকেটে থাকতে পারেননি আরেক প্রান্তে থাকা বাবর। দলের খাতায় ৪ রান যোগ করতেই অ্যান্ড্রু টাইয়ের বলে সরাসরি বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

কিন্তু ততক্ষণে নিজের ব্যক্তিগত অর্ধশতক হাঁকিয়ে ফেলেছিলেন তিনি। ৪ চার এবং ১ ছয়ে ৪০ বলে ৫০ রান করে আউট হন বাবর। তিনে নামা ডানহাতি ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ হাফিজের সাথে সঙ্গ দিতে নামেন দলের অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার শোয়েব মালিক।

১২ বলে ১৮ রান করে ফিরে যান তিনিও। কিন্তু অপর প্রান্তে ব্যাট হাতে দাঁড়িয়েছিলেন হাফিজ। ২০ বলে ৩২ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে পাঁচ উইকেট হারিয়ে ১৫০ রান সংগ্রহ করে স্বাগতিকরা। অজিদের হয়ে সর্বোচ্চ দুই উইকেট নিয়েছিলেন পেসার মিচেল মার্শ।

১৫১ রানে লক্ষ্যে ব্যাটিং করতে নেমে প্রথমেই অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চকে হারায় সফরকারীরা। দলীয় ২৪ রানে ফাহিম আশরাফের বলে ক্যাচ আউট হন তিনি। ১ রান করে ফিঞ্চের বিদায়ের পর পরের ওভারেই সাজঘরে ফেরেন আরেক ওপেনার অ্যালেক্স ক্যারি।

দুই চার ও দুই ছয়ে ৯ বলে ২০ রান করে হাফিজের স্পিনে ক্যাচ দিয়ে আউট হন এই ব্যাটসম্যান। তিনে নামা ক্রিস লিনের সাথে জুটি গড়ার চেষ্টা চালিয়ে যান বেন ম্যাকডারমট। ৩৬ রানের জুটি গড়ে ফিরে যান লিন। ব্যক্তিগত ১৫ রান করে ফিরতে হয় তাকে।

ম্যাকডারমট ফেরেন ২১ রান করে, আর তাকে ফিরতে হয় দুর্ভাগ্যজনক রান আউটে। এরপর মিচেল মার্শের ২১ এবং ডি’আরচি শর্টে ১০ রানের পর পাকিস্তনি বোলাদের সামনে দাঁড়াতে পারেননি অজিদের আর কোন ব্যাটসম্যানই। ১৯.১ ওভারে ১১৭ রান নিয়েই থেমে যায় অজিদের লড়াই।

পাকিস্তান জিতে যায় ৩৩ রানে। স্বাগতিকদের হয়ে সবচেয়ে বেশি তিন উইকেট শিকার করে স্পিনার সাদাব খান। এছাড়া হাসান আলি দুইটি উইকেট এবং হাফিজ, আশরাফ, উসমান একটি করে উইকেট নিতে সক্ষম হন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ