Skip to main content

৬৫ লাখ মানুষকে ভাতা প্রদানের আধুনিকায়নে বিশ্বব্যাংকের ২৫০০ কোটি টাকার ঋণ

আরিফুর রহমান তুহিন: সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীন প্রায় ৬৫ লাখ সুবিধাপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীকে ভাতা প্রদানে আধুনিকায়নের ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ সহায়তা দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। বাংলাদেশি টাকায় যার পরিমাণ প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা। ৩৮ বছরের মেয়াদকালীন এই ঋণের সুদের হার নির্ধারণ করা হয়েছে শূন্য দশমিক ৭৫ শতাংশ। ঋণ ফেরতের জন্য ৬ বছরের রেয়াতকালিন সময় পাবে বাংলাদেশ। এই প্রকল্পের মাধ্যমে চার শ্রেণীর সুবিধাভোগীদের দ্রুত সময়ে ভাতা প্রদান সম্ভব হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। রোববার সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সম্মেলন কক্ষে বিশ্বব্যাংক ও ইআরডির মধ্যে এ সংক্রান্ত একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর চিমিয়াও ফান ও ইআরডির অতিরিক্ত সচিব মাহমুদা বেগম চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। অনুষ্ঠানে বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ, ভুটান ও নেপাল অঞ্চলের কান্ট্রি ডিরেক্টর চিমিয়াও ফ্যান বলেন, একটি দক্ষ, আধুনিক ও সুরক্ষিত সামাজিক ব্যবস্থা গড়ে তুলতে দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের সুযোগ তৈরি করা গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশে ডিজিটাল প্লাটফর্ম গড়ে তুলতে এবং উন্নত প্রশাসনিক ব্যবস্থায় সহায়তা করে যাচ্ছে। এই প্রকল্প সুবিধাবঞ্চিতদের সেবা প্রদানে আর্থিক ব্যয় সাশ্রয় করবে। সেবা গ্রহীতাদের কাছে সহজে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা যাবে। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের জন্য বিশ্বব্যাংক গত অর্থবছরে তিন বিলিয়ন ডলারের ঋণ অনুমোদন দিয়েছে। চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম ৪ মাসেই এক বিলিয়ন ডলার অনুমোদন দিয়েছে। অনুষ্ঠানে ইআরডির অতিরিক্ত সচিব মাহমুদা বেগম বলেন, বর্তমান সরকার সুবিধাবঞ্চিতদের এগিয়ে নেওয়া জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সরকার সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনিকে আধুনিকায়ন করছে। এই প্রকল্পটি সরকারের ভিশনকে এগিয়ে নিতে এবং ২০১৫ সালের জাতীয় সামাজিক নিরাপত্তা কৌশলকে সহায়তা করবে। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ‘ক্যাশ ট্রান্সফার মডারাইজেশন প্রজেক্ট’ নামের এই প্রকল্পে সমাজসেবা অধিদপ্তরের অধীন যারা সুবিধা পেয়ে থাকে তাদেরকে দ্রুত সময়ে অর্থ প্রদান করা সম্ভব হবে। দরিদ্র, বয়স্ক, বিধবা, সুবিধাবঞ্চিত জনগণের জন্য নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান কর্মসূচিতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা আসবে। এই প্রকল্পের আওতাভুক্ত প্রোগ্রাগুলো হলো- বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, দুস্থ মহিলাদের ভাতা, আর্থিকভাবে অসহায় ব্যক্তিদের ভাতা এবং দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান প্রকল্প। প্রকল্পের আওতায় দেশব্যাপী প্রায় ৬৫ লাখ মানুষ প্রত্যক্ষভাবে সহায়তা পাবে।