প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ধর্মঘটে রাস্তায় অগ্নিসংযোগ
নারায়ণগঞ্জে কলেজ বাসে শ্রমিকদের হামলা, ছাত্রীদের গায়ে কালি লেপন

মনজুর আহমেদ অনিক, নারায়ণগঞ্জ: সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ এর কয়েকটি ধারা সংশোধনসহ আট দফা দাবিতে রোববার ভোর থেকে মঙ্গলবার ভোর পর্যন্ত ৪৮ ঘণ্টার ধর্মঘট ডেকেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন।

দেশব্যাপী ধর্মঘটের কর্মসূচি পালন করছে নারায়ণগঞ্জের পরিবহন শ্রমিকরা। সকাল থেকেই ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে অবস্থান নেয় শ্রমিকরা। এ সময় শ্রমিকরা মহাসড়কের সাইনবোর্ড, সানাড়পাড়, শিমরাইল মোড়, সিদ্ধিরগঞ্জ পুল ও কাঁচপুর পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে সকল প্রকার পরিবহন চলাচল বন্ধ করে দেয়।

স্থানীয়রা জানান, রিক্সা, অটোরিক্সা ও রোগীর অ্যাম্বুলেন্সসহ সব ধরনের যানবাহন আটকে দিচ্ছে শ্রমিকরা। বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে বাস টার্মিনালগুলোর আশপাশে ধর্মঘটের সমর্থনে পরিবহন শ্রমিকদের উচ্ছৃঙ্খল আচরণ চোখে পড়ে। আন্দোলনরত শ্রমিকরা চলাচলরত যাত্রী ও চালকের মুখ, কাপড়ে গাড়ির ব্যবহৃত ইঞ্জিন অয়েল (পোড়া মবিল) লাগিয়ে দিচ্ছে তারা। আর এ পোড়া মবিল থেকে রক্ষা পাচ্ছে না শিক্ষার্থীরাও। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নারায়ণগঞ্জে সরকারি মহিলা কলেজের শিক্ষার্থীদের বহন করা নারায়ণগঞ্জ-স-১১-০০০৬ নম্বরের গাড়িটি থামিয়ে লিংক রোড হামলা চালায় আন্দোলনরত পরিবহন শ্রমিকরা। এসময় তারা বাসচালক ও ছাত্রীদের গায়ে কালি লেপন করেছে। পাশাপাশি ভেঙে দেয়া হয়েছে বাসের জানালার গ্লাসও।

শিক্ষার্থীরা জানায়, দুপুর ১২টার দিকে সাইনবোর্ড এলাকা পার হওয়ার সময় হঠাৎ শ্রমিকরা বাসটি থামিয়ে চালককে মারধর করে ও তার মুখে শরীরে কালি লেপে দেন। পরে এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে কয়েকজন ছাত্রীকেও কালি লেপে দেন শ্রমিকরা। অকথ্য ভাষায় গালিগালাজও শুরু করেন। পরে বাসের কয়েকটি গ্লাস ভাংচুর করে বাস থেকে সবাইকে নামিয়ে দেওয়া হয়।

বাসটির চালক মজিবর বলেন, বাসটিতে ৩৮ জন ছাত্রী ছিল। তারা সবাই সরকারি মহিলা কলেজে অধ্যয়নরত। ছাত্রী বহনকারী বাসটি সাইনবোর্ড এলাকায় এলেই হামলা করে বাসের গ্লাস ভাংচুর করে শ্রমিকরা। পরে ছাত্রীদের গায়েও কালি মাখিয়ে দেয়।

নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ বেদৌরা বিনতে হাবিবা বলেন, আমাকে চালক জানিয়েছে ঘটনা। সেখানে শ্রমিকরা কয়েকটি গ্লাস ভাংচুর করেছে এবং ছাত্রীদের সঙ্গে একটুু সমস্যা হয়েছে। তাদের গায়ে কালিও দিয়েছে জানালো। বাসটি আপাতত একপাশে রাখা হয়েছে, কলেজে বাসটি ফিরলে বিস্তারিত জানতে পারবো। অপর দিকে জেলা থেকে কোন যাত্রীবাহিগাড়ি ও পণ্যবাহী যানবাহন চলাচল করেনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ