প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খালেদা জিয়ার জন্যে প্রস্তুত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব
সুষ্ঠু নির্বাচন : নাকি বন্দুকের নলের শাসন?

সমীরণ রায় : নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে, রাজনীতিতেও উত্তাপ বাড়ছে। ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। কেউ কেউ বলছেন, নির্বাচন তো হয়েই গেছে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি ভোট দিতে হয়নি। এবারও কি ভোট দিতে পারব? আবার কেউ কেউ বলছেন, এবার সব দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন হবে। তবে নির্বাচন কতটা সুষ্ঠু হবে তানিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন এলাকায় নির্বাচনী জনসভা করছে আওয়ামী লীগ ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। অর্থাৎ আওয়ামী লীগ জনসভার মধ্য দিয়ে ঐক্যফ্রন্টের সমালোচনা করছে। পাশাপাশি জনগণের কাছে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন তুলে ধরছে। আর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে ড. কামাল হোসেন সংবিধানের বিভিন্ন ব্যাখ্যা দিয়ে আসছেন। ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ক্ষমতাসীনরা শপথ ভঙ্গ করেছে। সংবিধান লঙ্ঘণ করছে। এই সংবিধান লঙ্ঘণের দায়ে, তাদের বিচার করা হবে, শাস্তি দেওয়া হবে। যারা ক্ষমতায় থাকে, তাদের শপথ নিতে হয়, যে আমরা ক্ষমতা প্রয়োগ করব সংবিধান অনুযায়ী। তারা এ শপথ ভঙ্গ করেছেন, এজন্য তাদের একদিন না একদিন বিচার করা হবে। আর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, একজন সংবিধান প্রণেতা কিভাবে অসাংবিধানিক কথা বলেন। এখন প্রশ্ন উঠেছে, নির্বাচনকালীন সরকার গঠন নিয়ে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সংবিধানের কোথাও লেখা নেই নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করতে হবে। অর্থাৎ নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের প্রশ্নই আসে না। কিন্তু ঐক্যফ্রন্টের ৭ দফা দাবির মধ্যে অন্যতম সংসদ ভেঙে নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করতে হবে। ইসিকে ঢেলে সাজাতে হবে। অন্যদিকে, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপিকে সঙ্গে নিয়ে ড. কামাল হোসেনের জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচন নিয়ে যে সাত দফা দাবি তুলেছেন, সেটাও এই মুহূর্তে মেনে নেওয়া সম্ভব নয়। ঐক্যফ্রন্ট হা হুতাশ করছে, অপজিশন তো একটু ক্রিটিকাল হবেই। অপজিশনের কাজই হলো ক্রিটিসাইজ করা। এই মুহূর্তে সাত দফা মেনে নিতে হলে সংবিধান পরিবর্তন করতে হবে। যা কোনো অবস্থাতেই সম্ভব না। কাজেই এ দাবির ব্যাপারে তারা যদি অনড় থাকেন, তাহলে দেশে অস্থিরতার পরিবেশ তৈরি হবে। দেশে এখন শান্তিপূর্ণ নির্বাচনী পরিবেশ বিরাজ করছে।

এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, দেশের রাজনীতি কোন দিকে যাচ্ছে। কেউ কেউ বলছেন, ড. কামাল হোসেন ‘শাখের করাত’। তিনি যেতেও কাটেন, আসতেও কাটেন।’ আর আওয়ামী লীগ গত ১০ বছর ক্ষমতায় রয়েছে। ফলে সাধারণ মানুষ কিছুটা ক্ষমতার বিপরীতে চলে গেছে। তাহলে কি আবার বন্দুকের নলের মুখে দেশ শাসন হবে? নাকি একটা সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে? যতি ঐক্যফ্রন্ট তাদের ৭ দফা দাবিতে অনড় থাকে। আর আওয়ামী লীগ ৭ দফা দাবিকে আমলে না নেয়, তাহলে কি দেশে অস্থিরতা বিরাজ করবে? তবে সাধারণ মানুষের চাওয়া একটি সুষ্ঠু নির্বাচন হোক। একটি গণতান্ত্রিক সরকার দেশে থাকুক।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ