Skip to main content

‘জনগণ ভোটাধিকার বঞ্চিত হলে দেশে সৃষ্টি হবে সংকট’

রফিক আহমেদ : বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি- সিপিবি’র সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেছেন, আমরা আশা করব আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার চলতি জাতীয় সংসদ অধিবেশনে সংবিধান সংশোধন করে নির্বাচন কালীন সরকারের বিষয়টি নিশ্চিত করবে। যাতে দেশের জনগণ অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক ও অর্থবহ নির্বাচনের মাধ্যমে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন। জনগণ কোনভাবেই ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত হলে দেশে নতুন করে সংকট সৃষ্টি হবে- যা কারো কাম্য নয়। রোববার রাজধানীর পুরানা পল্টন দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন। রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন, আমি সম্প্রতি দেশের উত্তরা অঞ্চল ঘুরে এসেছি- এলাকার সাধারণ মানুষের কাছে তাদের ভাষায় চলমান রাজনীতি সম্পর্কে অনেক শ্লোগানের মধ্যে একটি শ্লোগান মনোযোগ দিয়ে শুনেছি- সেটি হলো ‘দশের চলতি রাজনীতির বাও- যাই যত পার মারি ধরি খাও, কেউ এ নিয়ে বেশী যদি কও তার নামে মামলা ঢুকে দাও’। দেশের চলতি ধারার এ রাজনীতি আমরা গতি পরিবর্তনের সাথে নীতির পরিবর্তনের সংগ্রামে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করার জন্য রাজপথে আছি। তিনি বলেন, একাদশ নির্বাচনে অংশ নেয়ার মতো পরিবেশ সৃষ্টি হলে উপরোক্ত লক্ষ্যকে সামনে রেখে নির্বাচনী সংগ্রামে অংশ নেব। আমরা এর বিপরীতে দেখতে পাচ্ছি চলতি মুক্ত বাজারের নামে লুটপাটের অর্থনীতির ধারা বহাল রেখে শুধূমাত্র গদির পরিবর্তনের জন্য নানা ধরনের জোট বা মেরুকরণ হচ্ছে। আমরা মনে করি, এ ধারায় জনগণের মুক্তি নেই। একটু লক্ষ্য করলে দেখবেন দল পরিবর্তন, জোটে যোগ দেয়া- বেরিয়ে আসা এসব ঘটনা ঘটছে, ক্ষমতার ভাগবাটোয়ার ইকুয়েশন থেকে। তিনি আরও বলেন, দেশের সাধারণ জনগণকে এসব গালগল্পের মধ্যে রেখেই দেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রক্রিয়া চলছে। এটাই বাংলাদেশের রাজনীতির অন্যতম সংকট বলে আমি মনে করি। এই ধারা থেকে বেরিয়ে এসে সাধারণ জনগণ যদি নীতিহীন দুর্বৃায়িত রাজনৈতিক ধারাকে ‘না’ বলে নীতিনিষ্ঠ রাজনীতির ধারাকে ‘হ্যা’ বলতে পারে এবং এ লক্ষ্যে সচেতন ও সংগঠিত ভূমিকা রাখতে পারে- তা হলে কিছুটা পরিবর্তন আশা করা যায়। তা না হলে আমরা দু:শাসনের হাত থেকে পুরোপুরি মুক্তি পাবো বলে আশা করা যায় না।

অন্যান্য সংবাদ