প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পুলিশের ফেসবুক ব্যবহারে নিয়ন্ত্রণ আনা হচ্ছে

সমকাল : ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া পুলিশের কোনো সদস্য ফেসবুকসহ অন্য কোনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট বা ভিডিও আপলোড করতে পারবেন না। চলতি সপ্তাহে এ-সংক্রান্ত বিধিবিধান জারি করা হচ্ছে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে। সম্প্রতি পুলিশ সদস্যদের ফেসবুকে দেওয়া কিছু পোস্ট নিয়ে নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। সর্বশেষ রামপুরায় পুলিশ চেকপোস্টে এক তরুণীকে হয়রানি এবং সেই ভিডিও পোস্ট করায় সমালোচনায় মুখে পড়ে পুলিশ। বাহবা নিতে এক পুলিশ সদস্যই সেটি পোস্ট করেন। এতে বুমেরাং হয়ে শুরু হয় তীব্র সমালোচনা।

এ ঘটনার তদন্ত করছে পুলিশ। সাসপেন্ড করা হয় এক পুলিশ সদস্যকে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি (মিডিয়া) সোহেল রানা বলেন, যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কোনো পোস্ট দেওয়া যাবে না। এ-সংক্রান্ত বিধিবিধান শিগগিরই সবাইকে জানিয়ে দেওয়া হবে। অনেক দিন ধরেই এ বিষয়টি কীভাবে সমাধান করা যায় তা নিয়ে পুলিশ সদর দপ্তর কাজ করেছে।

রাজধানীর রামপুরায় চেকপোস্টে কয়েকজন পুলিশ সদস্যের হাতে এক নারী হয়রানির ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। ওই ভিডিওতে দেখা যায়, এক নারীকে তল্লাশি না করে আজেবাজে অপ্রাসঙ্গিক মন্তব্য করা হচ্ছে।

এ ঘটনায় রামপুরা থানার সহকারী এএসআই ইকবাল হোসেন ও মিরপুরের পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্টের (পিওএম) চার কনস্টেবল রকিবুল, জিতু, তৌহিদুল ও মিজানুরকে শনাক্ত করে বিভাগীয় তদন্ত শুরু হয়েছে। সাসপেন্ড করা হয়েছে এএসআই ইকবাল হোসেনকে।

চলতি বছরের ২৫ সেপ্টেম্বর রাজধানীর মিরপুর ১৩ নম্বরে স্কলাসটিকা স্কুলের সামনে সরকারদলীয় এমপির মেয়ে পরিচয়ধারী এক নারীর রূঢ় আচরণের ভিডিও ফেসবুকে আপলোড করেন ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট জোটন সিকদার। সেটি দেখে অনেকে ওই নারী সম্পর্কে বিদ্বেষমূলক পোস্ট দেন। তবে কী প্রেক্ষাপটে ওই নারী এমন আচরণ করেছেন ট্রাফিক পুলিশের সঙ্গে, ভিডিওতে ছিল না সেটা। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দায়িত্ব পালনের নামে রাস্তায় জোটন সিকদারও সাধারণ মানুষের সঙ্গে রূঢ় আচরণ করে থাকেন।

পুলিশের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসেবে পুলিশ সদস্যদের আচার-আচরণে নানা বাধ্যবাধকতা রয়েছে। শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য হিসেবে পুলিশ সদস্যদের ‘ফলো’ করে অনেকে। ফেসবুকে কিছু পোস্ট করার আগে সেটার প্রতিক্রিয়া বিবেচনায় আনতে না পারলে ঝুঁকি রয়েছে। এসব কিছু বিবেচনায় নিয়ে পুলিশ সদস্যদের ফেসবুক ব্যবহারে নিয়ন্ত্রণ আনা হচ্ছে। ফেসবুকে কোনো ভিডিও বা পোস্ট আপলোড করতে হলে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বা ইউনিটপ্রধানের অনুমতি লাগবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ