প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জীবননগরে হতদরিদ্র ভূমিহীন নারীকে ফাঁসিয়ে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ!

জামাল হোসেন খোকন : জীবনননগর উপজেলার হাসাদহ ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার হোটেল ব্যবসায়ী শরীফুল ইসলামের(৩৫) বিরুদ্ধে হাসাদহ বাজারপাড়া এক ভূমিহীন নারী তার মেয়ের বাড়িতে পুরাতন ইট পাঠানোর ঘটনাকে পুঁজি করে প্রথমে পুলিশ পরিচয় দিয়ে হুমকি দেয়ার পর দু’দফায় ৬ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার ব্যাপারে ভুক্তভোগী পরিবার আদালতে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

জীবননগর হাসাদহ বাজারপাড়ার আমজাদ হোসেন ম্যাজিকের মেয়ে আনোয়ারা খাতুন ওরফে আনু(৩৫) বলেন, আমার বাবা দীর্ঘদিন ধরে যশোর কারাগারে জেল খাটছেন। আমার স্বামীও আমাকে তেমন একটা খোঁজখবর নেয় না। এ অবস্থায় আমরা দীর্ঘদিন ধরে একজনের পরিত্যক্ত ভবনে বসবাস করে আসছি।

আমি একটা-দুইটা করে পুরাতন আধলা ইট জোগাড় করার পর সম্প্রতি তা আমার মেয়ে জামাই বাড়িতে পাঠিয়ে দিই। এ ঘটনায় আমার বাড়িতে গত রবিবার মেম্বার শরিফুল ইসলাম ও মিজানুর আমার বাড়িতে হাসাদহ ফাঁড়ীর পুলিশ নিয়ে আসে এবং আমাকে হুমকি দিয়ে বলে আমি ইট চুরি করেছি। আমার বিরুদ্ধে মামলা হবে।

এ ঘটনার পর আমার নিকট থেকে শরিফুল ও মিজানুর দু’দফায় ৬০০০ টাকা নিয়ে যায়। শরিফুল মেম্বারের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে একটি মেয়েলি ঘটনায় থানা পুলিশের নামে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানান, মেম্বার শরীফুল হাসাদহ জাফরাবাজপাড়ার খলিলুর রহমানের ছেলে। তিনি হাসাদহ বাজারের বেবী হোটেলের সত্বাধিকারী এবং হাসাদহ ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নং ওয়ার্ডের নির্বাচিত মেম্বার। অন্যদিকে, মিজানুর রহমান একই গ্রামের সোবহানের ছেলে।

এ ব্যাপারে ইউপি মেম্বার শরীফুল ইসলাম বলেন, ঘটনার দিন রাতে পুলিশের নিকট জানতে পারি, আনুর বাড়িতে একজন অপরিচিত লোক রয়েছে এবং পাওয়ার টিলার ভর্তি করে ইট পাচার করছে। ওই ইট পরিষদের চেয়ারম্যানের বাড়ির পিছনে যে রাস্তা হয়েছে সেখানে রাখা ইট সে চুরি করে অন্যত্র পাঠিয়ে দিচ্ছে। আমি সেখানে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পাই। বোঝেন তো পুলিশ ধরলে তাদেরকে কিছু দিতে হয়। এক পর্যায়ে আমরা আনুর নিকট থেকে সাড়ে ৫ হাজার টাকা নিই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত