প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আ’লীগের মনোনয়ন জরিপ করছেন শেখ হাসিনার পছন্দের নেতারা

রফিক আহমেদ : আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নকে ঘিরে ব্যাপক ব্যস্ততা তৈরি হয়েছে শাসক দল আওয়ামী লীগে।নির্বাচনকে সামনে প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগে ব্যস্ত আওয়ামী লীগের তরুণ মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।

সরকারের বিগত ১০ বছরের উন্নয়ন কর্মকান্ড তুলে ধরছেন সাধারণ মনুষের কাছে। ঈদ-পূজা থেকে শুরু করে বিভিন্ন ইস্যুতে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। দিচ্ছেন মটর শোভাযাত্রাসহ নানান ধরনের শোডাউন। পাড়া-মহল্লায় বিতরণ করছেন উন্নয়নের লিফলেট। পোষ্টার-ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে ফেলেছেন নিজ নিজ এলাকার রাস্তা-বাজার-হাট। নিজেকে দলীয় মনোনয়ণ প্রার্থী হিসেবে উল্লেখ করে ভোট চাইছেন নৌকায়।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কোনো ঝুঁকি নিতে রাজি নয় আওয়ামী লীগ। এমপি, মন্ত্রী বা কেন্দ্রীয় নেতা, কারো ব্যক্তি দায়ই দল নেবে না। ফলে ব্যক্তি দেখে নয়, বিভিন্ন জরিপ ও মাঠ পর্যালোচনা করে ‘উইনেবল’ প্রার্থীদেরই দলীয় মনোনয়ন দেবে দলটি। ইতোমধ্যে বিভিন্ন জরিপ সংস্থাসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের রিপোর্ট আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কাছে আছে। তিনি নির্বাচনী মাঠ আরো গভীর পর্যবেক্ষণ ও বিএনপির তৎপরতা দেখে প্রার্থী বাছাইয়ের চ‚ড়ান্ত করবেন। সেখানে যোগ্য অনেক নতুন মুখ উঠে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। শরীয়তপুর-২ আসনের প্রত্যান্ত অঞ্চলে সরকারের উন্নয়নচিত্র তুলে ধরে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম। তরুণ এই নেতা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কাজে নিবেদিত। কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে এরই মধ্যে নিজের অবস্থান পোক্ত করেছেন। বিগত নির্বাচনেও তিনি মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। তবে সেসময় কর্নেল (অব.) শওকত আলীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। শওকত আলীর বয়স হয়েছে। শারীরিকভাবেও তিনি পুরোপুরি সুস্থ নন। তবে এখানে তার ছেলে ডা. খালেদ শওকত আলীও এবার মনোনয়ন প্রত্যাশী। এছাড়া মাগুরা-১ আসনে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব সাইফুজ্জামান শিখরের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা জোরালো। শিখরের বাবাও আসনটিতে জনপ্রিয় সংসদ সদস্য ছিলেন। রাজবাড়ী-২ (পাংশা, কালুখালী, বালিয়াকান্দি) আসনের নির্বাচনী এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশী আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও ঢাবি ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শেখ সোহেল রানা টিপু। এলাকায় তার জনপ্রিয়তা রয়েছে। সম্প্রতি জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানবন্ধন করে তার মনোনয়নের দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ (বাঞ্ছারামপুর) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ মহি। কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদী-কিশোরগঞ্জ) আসনের আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ড. জায়েদ মোহাম্মদ হাবিবুল্লাহ্ নির্বাচনী মাঠে সক্রিয় রয়েছেন। নির্বাচনী এলাকার (কটিয়াদী-পাকুন্দিয়া উপজেলা) পাড়া-মহল্লা-বাজারে গণসংযোগ ও উঠোন বৈঠক করে সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরে নৌকার পক্ষে ভোট চাচ্ছেন তিনি। নেত্রকোনা-২ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী আওয়ামী লীগের উপকমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক মো. শামছুর রহমান লিটন ওরফে ভিপি লিটন গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন নিজ এলাকার মাঠে-ঘাটে। নেত্রকোনো-৩ আসনে আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল কয়েক বছর ধরেই মাঠে সক্রিয় রয়েছেন। নির্বাচনী এলাকায় নিয়মিত গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে নিজের শক্ত অবস্থানও তৈরি করেছেন ছাত্রলীগের সাবেক এই সাধারণ সম্পাদক। নেত্রকোনা-৫ আসনে মনোনয়ন পেতে কাজ করে যাচ্ছেন লন্ডন মহানগর আওয়ামী যুবলীগের সহসভাপতি প্রকৌশলী তুহিন আহমদ খান। নেতা-কর্মীদের নিয়ে সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরে ভোট চাইছেন নৌকায়। লিফলেট, ফেস্টুন ও বিলবোর্ডের মাধ্যমে তুলে ধরেছেন সরকারের উন্নয়ণ চিত্র। পথসভা, উঠান বৈঠক করছেন নিয়মিত।

নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেতে দিনরাত তৃণমূল নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে নৌকার পক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন সাবেক এমপি আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত। ইতোমধ্যে দলীয়প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশে তৃণমূলে সকারের উন্নয়ণ কর্মকান্ড তুলে ধরে প্রচারণার মাধ্যমে আলোচনায় রয়েছেন তিনি। নিজ নির্বাচনী এলাকার আনাচে-কানাচে এ প্রতিদিন দলের তৃণমূল নেতাকর্মীদের নিয়ে ওঠান বৈঠক করছেন তিনি। মুন্সিগঞ্জ-২ আসনে আওয়ামী লীগের সহ-সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানু আক্তার সরকারের উন্নয়নচিত্র তুলে ধরে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা ও পথসভা এবং গণসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আনোয়ার হোসেন কাজ করে যাচ্ছেন। নিজের সাংগঠনিক দক্ষতায় প্রত্যন্ত এলাকা থেকে উঠে এসে যুবলীগের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্বও পালন করেছেন। সিরাজগঞ্জ-৬ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন। প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা ও শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মতিন মোহনের সন্তান লিটন অতিরিক্ত সচিবের মর্যাদায় ডেইরি কাউন্সিলের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। বনানী থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর মোশাররফ হোসেন সিরাজগঞ্জ-৫ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী। কিশোরগঞ্জ-৫ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অজয় কর খোকন আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়ার লক্ষ্যে দীর্ঘদিন ধরেই নির্বাচনী এলাকায় রাজনৈতিক ও সামাজিক কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন। তুলে ধরছেন সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড।

রাজধানীর মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে আলোনায় রয়েছেন ঢাকা-৪ আসনে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক লুৎফর রহমান চেয়ারম্যান। দিবস ভিক্তিক কর্মসূচি পালন ও সরকারের উন্নয়ণ চিত্র তুলে ধরে নিয়মিত নৌকার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। পালন করছেন গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ কর্মসূচি। ঢাকা-৬ আসনে চৌধুরী আশিকুর রহমান লাভলু নিজ নিজ সংসদীয় আসনে সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরে গণসংযোগে ব্যস্ততম সময় পার করছেন। সরকারের গত ১০ বছরের উন্নয়ন তুলে ধরে ঢাকা-৮ আসনে বড় বড় শোডাউন করছেন যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। এই সব শোডাউনের মাধ্যমে তৃণমূল নেতাদের ঐক্যবদ্ধ করছেন তিনি। একইসাথে আবারো নৌকায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনার লক্ষে কাজ করছেন তিনি। এছাড়া পটুয়াখালী-১ আসনে আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন, নরসিংদী-৫ আসনে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য এ বি এম রিয়াজুল কবির কাওছার, দিনাজপুর-১ আসনে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবু হুসাইন বিপুর, পঞ্চগড়-১ আসনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্পের জনপ্রেক্ষিত বিশেষজ্ঞ নাঈমুজ্জামান মুক্তা, খুলনা-৬ আসনে কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার প্রেম কুমার এবং মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে অনেক দিন ধরে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা গোলাম সারোয়ার কবীর। স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের মধ্যে কবীরের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা চলছে। ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন চট্টগ্রাম-৬ আসনে, মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন। নির্বাচনী এলাকায় সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের প্রচার ও গণসংযোগ চালাচ্ছেন। ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহমুদ হাসান রিপন গাইবান্ধা-৫, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ বাগেরহাট-৪, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও বর্তমানে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটির সদস্য নুরুল আলম পাঠান মিলন ময়মনসিংহ-৭ আসনে, নাটোর-৪ আসনে কাজ করছেন যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট কোহেলী কুদ্দুস মুক্তি। এখনো পিতার পক্ষেই মাঠে কাজ করছেন বর্তমান এমপি অধ্যাপক কুদ্দুসের মেয়ে মুক্তি। তবে পিতার অবর্তমানে মুক্তি এ আসনে নিজেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে গড়ে তুলছেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, দলের মনোনয়ন চূড়ান্ত করবে সংসদীয় বোর্ড। অনেক আগে থেকেই মনোনয়ন ইচ্ছুকদের সম্পর্কে দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নানা সূত্রে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছেন, যা এখনও অব্যাহত আছে। এসব বিশ্লেষণ করে যাদের জেতার সামর্থ্য আছে, এলাকায় গ্রহণযোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা আছে, নেতাকর্মীদের সাথে সুসম্পর্ক ও সদ্ভাব আছে ও তাদেরকেই মনোনয়ন দেওয়া হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত