প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইতিহাসের বডি আছে মাথা নাই

সালেহ্ বিপ্লব : আসাদ ঊনসত্তুরের গণঅভ্যুত্থানের বীর শহীদ। আসাদের রক্তমাখা শার্ট আমাদের আদর্শের পতাকা, সারাদেশে বহুল প্রচারিত একটি স্লোগান। আসাদ শহীদ হয়েছিলেন ২১ জানুয়ারি।বাঙালির মহান মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্নসিঁড়ির অন্যতম সোপান তিনি। তার স্মরণে ১৯৯০ সালের ডাকসু ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সামনে নির্মাণ করেছিলো তার আবক্ষ মূর্তি।শিলালিপিতে তার নামধাম ও ঘটনার দিন তারিখ।

ঐতিহাসিক ভাস্কর্যটি কাদের গায়ে যেনো জ্বালা ধরিয়েছিলো! একদিন তারা মনুমেন্ট থেকে আসাদের মূর্তির মাথা ভেঙ্গে নিয়ে যায়। তাও ২৫ বছর আগের কথা। প্রথমে মাথা গেলো, তারপর গেলো গলা ও বক্ষ। এখন আর আসাদের মূর্তির শুধু ধারকটি টিকে আছে, আছে আসাদের আত্মবলীদানের ফলক। কারো নজর নেই! আসাদের মনুমেন্ট নেই, ভিত্তিপাথর ঘিরে ময়লা-আবর্জনার স্তুপ। কাকেরা মাঝে মাঝে সমাবেশ করে আসাদের ভাঙ্গা মনুমেন্টের উপরে।

ইতিহাসের সোনালী অধ্যায়ের প্রতি আমাদের নিকষ কালো দৃষ্টিভঙ্গির এই চিত্র দেখতে গিয়ে কথা হলো স্থানীয় বাসিন্দা শামীম আহমদের নামে। বাবা মেডিক্যালে চাকুরি করার সুবাদে এলাকার আদিবাসিন্দার তালিকাতেই পড়েন তারা। জানালেন, ৯৪ সালে চাকুরি নিয়ে সপরিবারে কুয়েত গিয়েছিলেন। ফিরে আসেন ১৯৯৮ সালে। ফেরার পরদিনই এ্যালিফ্যান্ট রোডের মেডিক্যাল কোয়ার্টার থেকে মাকে নিয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে যাচ্ছিলেন তিনি।

হাসপাতালের মেইন গেইটের সামনে নেমেইে দেখেন, তার খালাতো ভাই আসাদ মনুমেন্টের পাথরের গায়ে ঠেস দিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। মনুমেন্টে আসাদের বডি আছে, মাথা নাই। শামীম আহমেদের ভাষায়, ‘রিকশা থিকা নাইমাই দেখি, আসাদ ভাইয়ের কল্লা নাই।’ শামীমসহ এলাকার অনেক মানুষ ক্ষুব্ধ এনিয়ে।বাংলার স্বাধীনতার স্বপ্নসোপান যারা গড়লেন বুকের রক্তে, আসাদ তাদের অন্যতম। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের প্রধান গেইটে অবমাননার স্মারক হয়ে দাঁড়িয়ে আছে আসাদের শরীরবিহীন মনুমেন্ট। মানুষের প্রশ্ন, তাহলে কি আসাদের রক্তমাখা শার্ট আমাদের স্মৃতি থেকে মুছে গেলো?

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ