প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পিরোজপুরে ২ স্কুল ছাত্রকে নির্যাতন

খেলাফত হোসেন, পিরোজপুর : পিরোজপুরের নাজিরপুরে সুপারি পাড়তে গেলে দুই স্কুল ছাত্রকে কুপিয়ে ও গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহত স্কুল ছাত্রদ্বয়কে বাগেরহাটের চিতলমারি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। উপজেলার মাটিভাঙ্গা ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী সামন্তগাতী এলাকায় বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটে।

আহত স্কুল ছাত্র মো. নুরামিন শেখে উপজেলার মাটিভাঙ্গা ইউনিয়নের বরইবুনিয়ার সামন্তগাতি গ্রামের আছাদ শেখের পুত্র ও বরইবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে চলতি বছরের আসন্ন জেএসসি পরীক্ষার্থী। আর সুজিত বিশ্বাস বিশ্বাস সামন্তগাতি গ্রামের মৃনাল বিশ্বাসের পুত্র ও স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে চলতি বছরের পিইসি (প্রাথমিক সমাপনি) পরীক্ষার্থী।

নুরামিনের মা ফিরোজা বেগম জানান,গত ৭ বছর আগে স্থানীয় বরইবুনিয়ার হোগলাবুনিয়া গ্রামের জামসেদ মুন্সির কাছ থেকে আমার স্বামী আড়াইলাখ টাকায় ২ বিঘা বাগান বাড়ির জমি ক্রয় করেন। কিন্তু ওই জমি বিক্রেতার পুত্র মো. সাজ্জাদ হায়দার ইথর বিক্রয় মূল্য নিয়ে ফিরিয়ে দিতে চাপ দেন। স্থানীয় মৃনাল বিশ্বাসের পুত্র সুজিত বিশ্বাসকে নিয়ে সুপারি পাড়তে গেলে ইথর মুন্সি আমার পুত্র নুরামিনকে বেদম মারধর করে হত্যার উদ্দেশ্যে তার হাতে থাকা গামছা দিয়ে নুরামিনের গলায় ফাস দিয়ে নিজের হাতে করে ঝুলিয়ে রাখে।

এ সময় সুপারি পাড়তে যাওয়া সুজিত বিশ্বাসকেও পিটিয়ে ও কুপিয়ে পায়ের রগ কেটে দেয় প্রতিপক্ষ। আহত সুজিতের মা নবনিতা বিশ্বাস জানান, তারা গরীব হওয়ায় পেটের টানে সুপারি পাড়তে গিয়ে এ হামলার শিকার হয়েছেতার পুত্র।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মো. সাজ্জাদ হায়দার ইথরের সাথে মুঠো ফোনে কথা হলে তিনি জানান, তাদেরকে বেদম মারপিট করা হয় নি। নুরামিনকে চড় থাপ্পর মারা হয়েছে মাত্র। আর সুজিত কিভাবে তার পা কেটেছে তা আমার জানা নেই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ