প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘বিশ্বের সাতটি টক শো’র একটি তৃতীয় মাত্রা’

অনলাইন ডেস্ক : দেশের প্রথম টক শো তৃতীয় মাত্রা৷ এর মাধ্যমেই ২০০৩ সালে দেশে টক শো যাত্রা শুরু করে৷ দেশের সবচেয়ে পুরনো ও জনপ্রিয় অনুষ্ঠানের গল্প ডয়চে ভেলেকে শুনিয়েছেন অনুষ্ঠানের সঞ্চালক জিল্লুর রহমান। ইতোমধ্যে এই টক শো ৫ হাজার ৫৪৬তম পর্বটিও প্রচার হয়ে গেছে।

১৬ বছর ধরে চলা এই টক শো’র সাফল্য নিয়ে ডয়চে ভেলেকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে জিল্লুর রহমান বলেন, বিশ্বের সাতটা লম্বা টক শোর মধ্যে এটা একটা। এটাকেই বড় অর্জন মনে করেন তিনি।

তৃতীয় মাত্রার শুরুর অবস্থা নিয়ে জিল্লুর রহমান বলেন, এটা শুরু হয়েছিল ২০০৩ সালে। তখন পার্লামেন্ট খুব একটা কার্যকর ছিল না। বিরোধী দল খুব একটা অ্যাকটিভও ছিল না। তাদের সংসদের প্রতি আগ্রহ ছিল কম। সেই সময় টেলিভিশনে টক শো বলতে যা বোঝায়, তাও ছিল না। যেগুলো ছিল সেগুলো একটা আলোচনা অনুষ্ঠানের মতো করে হতো। তখন আমি একটা পাইলট প্রজেক্টের মতো দুই-একটা টক শো করলাম। অপজিশন এবং সরকারি দল সবাইকে নিয়ে কয়েকটি করার পর আমার মনে হলো, এটা আমি করতে পারি৷ তখন সাগর ভাইয়ের সঙ্গে কথা হলো। তিনি অনুমতি দিলেন যে এমন একটা অনুষ্ঠান করা যায়। এরপর মূল কাজ শুরু করলাম। আসলে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার বিষয়টি মাথায় রেখেই এবং সব পক্ষের মানুষ যেন এক টেবিলে বসতে পারেন সেই চিন্তা থেকেই এই অনুষ্ঠানটির যাত্রা শুরু হয়।

অনুষ্ঠানের অতিথি নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি আসলেই কাজটা স্বাধীনভাবেই করছি। যদিও নানারকম চাপ থাকে। তারপরও এখানে আমার এক ধরনের স্বাধীনতা আছে। যতক্ষণ পর্যন্ত আমি মনে করবো যে আমি স্বাধীনভাবে কাজ করছি, ততদিন পর্যন্ত আমি তৃতীয় মাত্রার উপস্থাপনা করে যাব। আর যেদিন আমি দেখবো তৃতীয় মাত্রায় আমি স্বাধীনভাবে করতে পারছি না, তখন আমি নিজেই এখান থেকে সরে যাব।