প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

৪০ বছরে আড়ং এর ২১ আউটলেট

জুয়েল খান : ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে আজ বুধবার লাইফস্টাইল ব্রান্ড আড়ং এর ৪০ বছরপূর্তি উপলক্ষে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। সবার জন্য উন্মুক্ত এই অনুষ্ঠানের নাম দেওয়া হয়েছে ‘আড়ং ফরটিইয়ারস ফেস্টিভাল’।

এ বিষয়ে ব্রাক ও ব্রাক ইন্টারন্যাশনালের কমিউনিকেশন ডিরেক্টর মৌটুশি কবির বলেন, যাত্রা শুরুর পর ৪০ বছর পার করছে আড়ং। এখন সারাদেশে আড়ং এর ২১ টার মতো আউটলেট আছে। এরমধ্যে ১০০ টির মতো পন্যসম্ভার আছে যেমন, ফ্যাশন, লাইফস্টাইল, হোমডেকোর প্রভৃতি। এছাড়া আড়ং এর একটা ই-কমার্স ওয়েব সাইট আছে। যার মাধ্যমে অনলাইনে পণ্য বিক্রয় করা হয়।

তিনদিন ব্যাপি এই আয়োজনে হস্তশিল্প প্রদর্শনীর পাশাপাশি থাকছে কয়েকটি কর্মশালা। বাংলাদেশে হস্ত ও কারুশিল্প হিসাবে ১৯৭৮ সালে আড়ং প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ব্রাকের প্রতিষ্ঠাতা ফজলে হাসান আবেদ। এখন ঢাকাসহ অনেক বড় শহরেই বিস্তার লাভ করেছে।

তিনি বলেন, ১৯৭৬ সালের দিকে ব্রাক মানিকগঞ্জের নারীদেরকে রেশমচাষে উদ্বুদ্ধ করে। কিন্তু তখন ঢাকা শহরে রেশমের চাহিদা খুবই কম থাকার ফলে নারীরা তাদের উৎপদিত কারুপণ্যের মূল্য একটু দেরিতে পেত। গ্রামীণ নারীরা যাতে তাদের উৎপাদিত কারুপণ্যের ন্যায্যমূল্য পায় এবং পণ্যটা বিক্রয় করা যায় সেই কথা মাথায় রেখেই ১৯৭৮ সালে ঢাকার ধানমন্ডিতে ব্রাক তার প্রধম আউটলেট প্রতিষ্ঠা করে এবং নাম দেয়া হয় ! আড়ং!

তিনি আরও বলেন, সারাদেশে প্রায় ৬৫ হাজারের মতো কারুশিল্প এবং হস্তশিল্প উদ্যোগতা আড়ং এর সাথে কাজ করে। বাংলাদেশের যে ঐতিহ্য এবং কারুশিল্প আছে তার একটা সমকালীন রূপে এবং আধুনিক ফ্যাশান ট্রেন্ডের সম্মেলন ঘটিয়ে উপাস্থ্পন করা। যেমন, জামদানী, নকশীকাথা, শতরঞ্জিসহ শতাধিক পণ্য আছে। বাংলাদেশের মানুষের প্রত্যেকের খুব কাছের ব্রান্ড আড়ং সরার আস্থা অর্জন করেছে। আর তাই আড়ংয়ের আজকের এই অবস্থান। বিবিসি বাংলা

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ