প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কক্সবাজার শহরের ডিসি পাহাড়ের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

কালের কন্ঠ : কক্সবাজার শহরের কলাতলী সৈকত পাড়ার ‘ডিসি পাহাড়’ নামে পরিচিত সরকারি পাহাড় দখল করে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা গুঁড়িয়ে দিয়েছে প্রশাসন। এ সময় ওই পাহাড় কেটে অবৈধভাবে নির্মিত শতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। হাইকোর্টের নির্দেশে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজিম উদ্দীন। বুধবার জেলা পুলিশের সহযোগিতায় এ অভিযান পরিচালনা করে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আশরাফুল আফসারের সার্বিক তত্ত্বাবধানে অভিযান পরিচালনা করেন কক্সবাজার সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজিম উদ্দীন। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ অধিদপ্তর কক্সবাজার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সাইফুল আশ্রাব।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজিম উদ্দীন জানান, কক্সবাজার শহরের সৈকত তীরে হোটেল-মোটেল জোনের পাশে প্রায় ৯০ একরের একটি অক্ষত পাহাড় রয়েছে। ‘ডিসি পাহাড়’ হিসাবে পরিচিত খাস জমির এ পাহাড়ের মালিক সরকার। কিন্তু প্রশাসনের অগোচরে বেশ কিছুদিন ধরে সরকারি এ পাহাড়ের জমি দখল করে বিভিন্ন ব্যক্তি। লাইট হাউজ সমবায় সমিতির আবাসন প্রকল্পের নামেও পাহাড়টিতে স্থাপনা নির্মাণ করে সংঘবদ্ধ একটি চক্র।

এমনকি পরিবেশবাদী পরিচয় দিয়েও কতিপয় ব্যক্তি সরকারি পাহাড়ের জমি দখল করে প্লট প্রতি দু’তিন লাখ টাকার বিনিময়ে হলফনামা মূলে বিক্রি করেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। আবার সরকারি পাহাড়ের জমি বিক্রির পর উল্টো এসব ব্যক্তিরাই উচ্ছেদের জন্য আবেদন করার মতো ঘটনাও ঘটেছে বলে জানা গেছে।

এভাবে গত কয়েক মাসে পাহাড়ের বিভিন্ন পয়েন্টে শতাধিক টিনের ঘর তৈরি করা হয়েছে। এসব স্থাপনা তৈরিতে পাহাড়ও নির্বিচারে কাটা হয়েছে। এ বিষয়ে গত ৩ জুলাই সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ একটি রিট মামলার প্রেক্ষিতে স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ ও নির্মিত স্থাপনা উচ্ছেদে ব্যবস্থা নিতে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেন। উচ্চ আদালতের এ নির্দেশনার প্রেক্ষিতে বুধবার এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ