প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আ.লীগ যা বলে তা বিশ্বাস করে না, আর যা বিশ্বাস করে তা বলে না : খোকন

সাজিয়া আক্তার : আওয়ামী লীগ এমন একটা দল যেটা বিশ্বাস করে তারা সেটা বলে না, আর যেটা বলে সেটা বিশ্বাস করে না, যমুনা টেলিভিশনের রাজনীতি বিষয়ক টকশোতে এমনটাই জানান, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন।

বর্তমান সরকারকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, তোরা যে যা বলিস, ভাই আমার সোনার হরিণ চাই। যাই বলা হোক না কেনো আমার সোনার হরিণ থাকতেই হবে ।

৯৫- ৯৬ সালে আওয়ামী লীগ আন্দোলন করে কেয়ারটেকার সরকারের জন্য। সেখানে স্লোগান দিল আমার ভোট আমি দেব, যাকে খুশি তাকে দেব, এর জন্য তত্ত্বাবধায়ক সরকার দরকার। আর তারা তত্ত্বাবধায়ক সরকারে এসেই এটা বাতিল করে দিল। আমার কাছে বর্তমান সময়ের এবং ৯৬ সালের কনস্টিটিউশন দুটোই আছে। সেখানে স্পষ্ট লেখা আছে ১২৩ এর ৩ ধারায় মেয়াদ অবসানের কারণে অথবা মেয়াদ অবসান বিশেষায়িত অন্য কোনো কারণে সংসদ ভাঙিয়া যাইবার পরবর্তি ৯০ দিনে সংসদের সাথে নির্বাচন নিষিধ্য হবে। ৯৮ সালের কনস্টিটিউশনের একই কথা বলা আছে।

মাহবুব উদ্দিন খোকন, তাহলে বর্তমান সরকার এটা পরিবর্তন করলো কেনো? কোনোভাবে যদি ক্ষমতা থেকে বিচ্চুত হয় আওয়ামী লীগ, তাহলে পরবর্তি সব সরকারেই একই কাজ করবে। ক্ষমতা ব্যবহার করবে পরবর্তিতে ক্ষমতায় থাকার জন্য। এটা কী উচিত?

মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, বিএনপি সরকার আমলে আমরা প্রথম ভুল করেছিলাম, পরে এটা বুঝতে পেরেছি। জনগণ আসলে তত্ত্বাবধায়ক সরকার চায়। আওয়ামী লীগ, জামায়াত এবং জাতীয়পার্টির যৌথ্য দাবি ছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকার দেওয়ার জন্য, তার জন্য তারা আন্দোলন করেছিল। আমরা সেই দাবি বাস্তবায়ন করেছিলাম। কিন্তু তারা ক্ষমতায় এসে এই আইন বাতিল করে দিল। নির্বাচনকালীন সরকারের কাজ কী এটা নির্বাচন সামনে রেখে বিরোধী দলের হাজার হাজার নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়া?

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের রূপ রেখা আসবে সময়মতো, তবে তা জটিলতা এড়ানোর জন্য। সরকার জটিলতায় যেনো না পড়ে। শিডিউল ঘোষণার আগেই সংসদ ভেঙে দেওয়া উচিত। আওয়ামী লীগের সুষ্ঠু নির্বাচনের ইতিহাস নেই। সেটা আগেও ছিল না, তার জন্য গত ১০ বছরে দেশের জনগণ ভোট দিতে পারেনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ