প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নবী (সা.) সমালোচনার জবাব দিতেন যেভাবে

সাইদুর রহমান: সমালোচনা কখনও ভালো পরিণতি বয়ে আনে যদি তা ইতিবাচক দিক নিয়ে চিন্তা করা হয়। নিছক বিরোধিতা আর শত্রুতা পোষণ করলে সমালোচনা সংঘাতে পরিণত হয়। আমাদের প্রিয় নবী (সা.) যেভাবে সমালোচনার প্রতিকার করেছেন সেভাবে সমালোচনা মোকাবেলা করা সম্ভব সহজেই। এ আদর্শ অতি অনুসরণীয়।

সমালোচনাকে সবিনয়ে গ্রহণ করাই শুধু নয়, বরং এটাকে ইতিবাচক ফল লাভের জন্য ব্যবহার করার ক্ষেত্রেও হজরত মুহাম্মদ (সা.) ছিলেন দৃষ্টান্তস্বরূপ। এ বিষয়ে দুটি ঘটনা পেশ করা হলো। যেখানে সমালোচনার প রনবী সা.) সামান্যতম তিরস্কার করা তো দূরের কথা বরং ভুল ধারণা দূর করে মানুষকে কাছে টেনে এনেছেন।

একদিন এক ইহুদি ধর্মযাজক জায়েদ ইবনে সানা মহানবী (সা.)-এর কাছে এলেন তার থেকে নেয়া ঋণের অর্থ আদায়ের জন্য। তিনি নবী (সা.)-এর কাঁধ বরাবর তার জোব্বা ধরে খুব জোরে টান দিলেন এবং কর্কশভাবে বললেন, ‘তুমি আবদুল মুত্তালিবের বংশধর, আমার পাওনা পরিশোধে টালবাহানা করছো।’
হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর অন্যতম সাহাবি হজরত উমর (রা.) এতে ভীষণ ক্রুদ্ধ হয়ে ওই যাজককে ভর্ৎসনা করলেন। তিনি বললেন, হে আল্লাহর দুশমন, তুমি কি এভাবে আল্লাহর রাসূল (সা.)-এর সাথে কথা বলছ আর আচরণ করছ? যিনি তাকে সত্যসহকারে পাঠিয়েছেন, তার কসম খেয়ে বলছি, যদি বেহেশত হারানোর আশঙ্কা না থাকত, আমি তরবারি দিয়ে তোমার গর্দান থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে ফেলতাম।’

রাসূলুল্লাহ (সা.) মুচকি হাসছিলেন। তিনি উমর (রা.)-কে বললেন, এই মানুষটি তোমার কাছ থেকে উত্তম আচরণ লাভের যোগ্য। তোমার উচিত ছিল অবিলম্বে ঋণ পরিশোধের জন্য আমাকে বলা এবং নম্রভাবে দাবি পেশ করার জন্য তাকে বলা।
এরপর (ঋণদাতা) জায়েদের দিকে ফিরে রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন, ঋণ শোধ করার নির্ধারিত সময়ের এখনো তিন দিন বাকি আছে। একই সাথে তিনি উমর (রা.)-কে বললেন ঋণের অর্থ শোধ করে দিতে। আরো বললেন জায়েদের যা প্রাপ্য, তাকে তার চেয়েও বেশি দিতে। এই অতিরিক্ত পরিমাণটা হলো জায়েদের প্রতি তার হুমকির ক্ষতিপূরণ।

এ ঘটনায় মহানবী মুহাম্মদ (সা.) কোনো আত্মরক্ষামূলক মনোভাব দেখাননি। এটা জানা ছিল যে, তিনি কখনো নিজের স্বার্থে ক্রুদ্ধ হবেন না। বরং মহান আল্লাহ তায়ালার নির্ধারিত সীমা কোনোভাবে লঙ্ঘন করা হলে কেবল আল্লাহর স্বার্থেই তিনি ক্রোধ প্রকাশ করতে পারেন।
হজরত আয়েশা (রা.) বলেছেন, রাসূল (সা.) কখনো নিজের জন্য প্রতিশোধ নেননি; যে পর্যন্ত না আল্লাহতায়ালার মর্যাদা ক্ষুন্ন হয়। তখন তিনি আল্লাহর স্বার্থে প্রতিশোধ নিতেন। -সহিহ বোখারি

এ বিষয়ে আরেকটি ঘটনা উল্লেখযোগ্য। একটা যুদ্ধের পরে রাসূল (সা.) জনগণের মধ্যে যুদ্ধলব্ধ মালামাল বণ্টন করতে শুরু করলেন। প্রথমেই যারা এটা পেলেন এবং পেলেন সর্বাধিক, তারা হলেন নওমুসলিম। এদের দেয়ার কাজ শেষ হলে রাসূলুল্লাহ (সা.) এ ধরনের আরো মালামাল সংগ্রহ করে লোকজনকে ডাকার জন্য জায়েদ বিন সাবিতকে আদেশ দিলেন। দূরদর্শিতার সাথে এগুলোর বিতরণের কাজ সম্পন্ন হলো। তবে সবাই এটা উপলব্ধি কিংবা এর প্রশংসা করলেন না। মদিনার কিছু লোক তাদের হিস্যার ব্যাপারে আপত্তি জানালেন।
হজরত সাদ ইবনে উবাদা (রা.) রাসূল (সা.)-এর কাছে না যাওয়া পর্যন্ত অসন্তোষ অভিযোগে রূপ নেয়। সাদ তাকে বললেন, হে আল্লাহর নবী! যুদ্ধের মালামাল বণ্টনের বিষয়ে (মদিনার অধিবাসী) এই আনসারদের গ্রুপটি মর্মাহত। আপনি নিজের আত্মীয়স্বজনকে এই মালামাল দিয়েছেন। আরব গোত্রগুলোকে দিয়েছেন বহু উপহার। অথচ আনসারদের জন্য রাখলেন না কিছুই।

রাসূল (সা.) জিজ্ঞেস করলেন, সাদ, তুমি কী মনে করো? সাদ (রা.)-এর জবাব, হে আল্লাহর রাসূল! আপনি জানেন যে, আমি আনসারদের একজন সদস্য। রাসূল (সা.) তাকে নির্দেশ দিলেন, তোমার লোকজনকে নিয়ে আসো। এ পর্যায়ে যে কারো মনে হতে পারে যে, যুদ্ধেপ্রাপ্ত মালামাল বণ্টনের ক্ষেত্রে রাসূল (সা.)-এর ন্যায়বিচারকে সন্দেহ করায় তিনি তাদের ভর্ৎসনা করবেন অথবা তার সম্পর্কে মন্দ ধারণা পোষণের দরুন তিনি তাদের শাস্তি দেবেন। কিন্তু যখন লোকজন জড়ো হলো রাসূলুল্লাহ (সা.) তাদের মুখোমুখি হলেন, তাদের জানালেন ধন্যবাদ আর প্রশংসা করলেন আল্লাহ তায়ালার।
এরপর মহানবী (সা.) সমাগত লোকজনকে বললেন, আমাকে জানানো হয়েছে যে, তোমরা আমার প্রতি ক্রুদ্ধ হয়েছো। তোমরা যখন ছিলে পথভ্রষ্ট, তখন কি আমি তোমাদের কাছে আসিনি? আর আল্লাহ কি তোমাদের সুপথ দেখাননি? তোমরা তো গরিব ছিলে; আল্লাহ তোমাদের সম্পদ দিয়েছেন। তোমরা কি একে অন্যের শত্রু ছিলে না এবং এখন তোমাদের পরস্পরকে ভালোবাসার মতো অবস্থা কি তিনিই তৈরি করে দেননি?

তারা জবাব দিলো, হ্যাঁ, আল্লাহ ও তার রাসূল (সা.) উত্তম এবং বেশি দয়ালু। এরপর মহানবী (সা.) বললেন, হে আনসারগণ! আল্লাহর নবীর কাছে জবাব দেয়া থেকে তোমাদের কিসে বিরত রাখে?’ তারা বলল, আল্লাহর রাসূল (সা.), জবাব আর কী হবে, যখন সব দয়া ও করুণা মহান প্রভু আর তার রাসূল (সা.)-এর?
রাসূল (সা.) বললেন, আল্লাহর কসম, তোমাদের জবাবের সত্যতা পরীক্ষা করে দেখতাম, যদি তোমরা বলতে, আপনাকে ভুল বুঝে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল। তখন আপনি আমাদের কাছে এলেন আর আমরা আপনাকে নিলাম গ্রহণ করে। আপনি এসেছিলেন অসহায় অবস্থায়; আর আমরা আপনাকে সাহায্য করলাম। আপনি ছিলেন পলাতক; আমরা আপনাকে আশ্রয় দিলাম। ছিলেন গরিব; আমরা আপনার দুর্ভোগ দূর করলাম।’

মহানবী (সা.) আরো বললেন, হে আনসারগণ! তোমরা যে ধর্মের ওপর প্রতিষ্ঠিত, সে দিকে আকৃষ্ট করতে ওই লোকগুলোকে যা দিয়েছি, তোমরা কি দুনিয়ার সে ধনসম্পদের আকাঙ্খা করো? অন্যরা ভেড়া ও উট নিয়ে বাসগৃহে ফিরবে, আর তোমরা ফিরে যাবে আল্লাহর রাসূলকে নিয়ে; এতে কি তোমরা সন্তুষ্ট নও? যার হাতে আমার জীবন, তার কসম খেয়ে বলছি, যদি কোনো হিজরত না ঘটত, আমি হতাম আনসারদের একজন। যদি সবাই একটি উপত্যকার পথ ধরে চলত, আর আনসাররা চলত ভিন্ন একটি উপত্যকা ও পথে, আমি আনসারদের উপত্যকার মধ্য দিয়ে চলতাম এবং তাদের পথটাই গ্রহণ করতাম। হে আল্লাহ! আনসারদের প্রতি দয়া করো, তাদের সন্তানাদি এবং তাদের সন্তানদের সন্তানদের ওপরও করুণা বর্ষণ করো।’
রাসূলে কারিম (সা.)-এর এ কথাগুলো শুনতে শুনতে আনসাররা কাঁদতে থাকেন। তাদের চোখের পানি দাড়ি বেয়ে গড়িয়ে পড়তে লাগল। তারা বললেন, হ্যাঁ, আমাদের সম্পদ ও সৌভাগ্য নিয়ে আমরা সন্তুষ্ট। হে আল্লাহর রাসূল।

অথচ একজন নবী হিসেবে হজরত মুহাম্মদ (সা.) কারো কাছে জবাবদিহি করতে বাধ্য ছিলেন না। উপরোক্ত পরিস্থিতি মোকাবেলায় তিনি চালিত হয়েছিলেন মানুষের জন্য দরদ ও দূরদৃষ্টি দ্বারা।
যুদ্ধে প্রাপ্ত মালামাল বণ্টনে রাসূল (সা.)-এর ইনসাফকে সন্দেহ করার ফলে তিনি ভর্ৎসনা করেননি। বরং তার পদক্ষেপের পেছনে যে কারণগুলো ছিল, সেগুলো বুঝিয়ে বলাকেই গুরুত্বপূর্ণ মনে করেছেন। আনসারদের ক্ষোভের প্রকৃত কারণটি তিনি উপলব্ধি করেছিলেন।
রাসূল (সা.) তার সাহাবিদের সম্পর্কে সর্বোত্তম ধারণা পোষণ করতেন। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন, তাদের জন্য তার স্নেহ-ভালোবাসার বিষয় আবারো নিশ্চিত করা প্রয়োজন। তিনি বুঝেছিলেন, তারা আসলে এ কথা বিশ্বাস করেনি যে, তিনি অন্যায় করেছেন।

বস্তুত রাসূলুল্লাহ (সা.) যেভাবে সমালোচনার মোকাবেলা করতেন, তার দৃষ্টান্ত থেকে আজকের মুসলমানরা লাভবান হতে পারে। তিনি শিখিয়েছেন, সব সময়ে অন্যের সম্পর্কে ভালো ধারণা রাখা, সব পরিস্থিতিতে বিনয়ী থাকা এবং শুধু আল্লাহর স্বার্থে ক্রোধ প্রকাশ করা।

সর্বাধিক পঠিত