প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জনসভার জন্য প্রস্তুত সিলেট রেজিস্ট্রি ময়দান
আলোচনা করে নির্বাচনের শিডিউল ঘোষণার দাবি জানাবে ঐক্যফ্রন্ট

শাহানুজ্জামান টিটু : আলাপ আলোচনা না করে নির্বাচনের শিডিউল ঘোষণা না করতে সিলেট জনসভা থেকে সরকারের প্রতি আহবান জানাবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। একই সঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের ৭ দফা দাবি মেনে নেওয়ার জন্য সরকারকে সময় বেঁধে দেবে। ওই সময়ের মধ্যে দাবি না মানলে বৃহত্তর আন্দোলনে নামারও হুশিয়ারী দেবে ঐক্যফ্র্যন্টের নেতারা।

এবিষয়ে ঐক্যফ্রন্ট নেতা আ সম আবদুর রব বলেন, কোনো চাপের কাছে, কোনো স্বৈরাচারী আচরণের কাছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মাথা নত করবে না। জনসভা জনসমুদ্রে পরিণত করতে সব ধরণের প্রস্তুতি নিয়েছে সিলেট ঐক্যফ্রন্ট। রেজিস্ট্রি মাঠে জনসভার মঞ্চ প্রস্তুত। দুপুর দুইটা থেকে জনসভা শুরু হবে। সমাবেশস্থলের আশেপাশে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, ড. কামাল হোসেনসহ ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের ছবি প্রদর্শিত হচ্ছে।

বুধবার ভোর ৭টায় সিলেট হযরত শাহ জালাল (রহ.) ও হযরত শাহ পরাণ (রহ.) এর মাজার জিয়ারত করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহম্মেদ, ড. আব্দুল মঈন খান, জাসদ সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক সহ জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের নেতারা এখন সিলেটে অবস্থান করছেন। গতকাল রাতে সিলেটে পৌঁছান ড. কামাল হোসেন, বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু।

গতকাল বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে সিলেট এমএজি ওসমানী বিমানবন্দরে পৌঁছান ড. কামাল। সেখানে স্থানীয় নেতারা তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ড. কামাল হোসেন বলেন, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবিতেই এ সমাবেশ। জনগণের দাবি আদায়ে পরবর্তী কর্মসূচি সমাবেশ থেকে ঘোষণা করা হবে।

এছাড়া গতকাল সড়ক পথে সিলেটে গেছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব।
সমাবেশে বিপুল সংখ্যক লোকের সমাগম ঘটাতে সিলেটের বিভিন্ন উপজেলাসহ আশেপাশের জেলার নেতাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে সমাবেশের প্রচারণায় বাধার অভিযোগ তুলেছেন ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সিলেটের সমন্বয়ক ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ বলেন, সিলেটে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশকে কেন্দ্র করে নগরে মাইকিং শুরু হয়। কিন্তু পুলিশ তাতে বাধা দিয়েছে। এমনকি মাইকিং করার গাড়িগুলোও থানায় ধরে নিয়ে গেছে। এতেই বোঝা যায় পুলিশ আমাদের সমাবেশকে বাধাগ্রস্ত করার জন্য কাজ শুরু করে দিয়েছে। আমাদের আশঙ্কা সমাবেশে নেতাকর্মীরা আসার সময় পুলিশ ধরপাকড় করবে।

তিনি জানান, পুলিশ আমাদের সমাবেশের জন্য ১৪টি শর্ত দিয়েছে। আমরা তা মেনে নিয়েছি। কিন্তু তাতেও পুলিশের মন শান্ত হচ্ছে না। নেতাকর্মীদের ইতোমধ্যে পুলিশের নির্দেশনাগুলো জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। সম্পাদনা : শাহীন চৌধুরী

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ