প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নামাজের সুন্নত নিয়ে কথা

ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ : নামাজ পরিপূর্ণভাবে আদায় করার জন্য ফরজ ও ওয়াজিবের সঙ্গে যে বিষয়টির দরকার, সেটি হলো সুন্নত ও মুস্তাহাব। আমরা অনেকেই নামাজ আদায় করি; কিন্তু নামাজের সুন্নত ও মুস্তাহাব আমলগুলোর প্রতি বেশি গুরুত্ব দিই না। নামাজে মোট ২১টি সুন্নত ও ৭টি মুস্তাহাব আমল রয়েছে। নামাজের সুন্নতগুলো হচ্ছে- ১. ফরজ নামাজের জন্য আজান ও ইকামত বলা। ২. তাকবিরে তাহরিমার সময় উভয় হাত উঠানো। ৩. হাত উঠানোর সময় আঙুলগুলো স্বাভাবিক রাখা। ৪. ইমামের জন্য তাকবিরগুলো উচ্চৈঃস্বরে বলা। ৫. সানা পড়া। ৬. ‘আউজুবিল্লাহ’ পড়া। ৭. ‘বিসমিল্লাহ’ পড়া। ৮. অনুচ্চস্বরে ‘আমিন’ বলা। ৯. সানা, আউজুবিল্লাহ বিসমিল্লাহ, আমিন অনুচ্চস্বরে বলা। ১০. হাত বাঁধার সময় বাম হাতের ওপর ডান হাত রাখা। ১১. পুরুষের জন্য নাভির নিচে আর মহিলার জন্য বুকের ওপর হাত বাঁধা। ১২. এক রোকন থেকে অন্য রোকনে যাওয়ার সময় ‘আল্লাহু আকবার’ বলা। ১৩. একাকী নামাজ পাঠকারীর জন্য রুকু থেকে ওঠার সময় ‘সামিআল্লাহু লিমান হামিদা’ ও ‘রব্বানা লাকাল হামদ’ বলা। ইমামের জন্য শুধু ‘সামিআল্লাহু লিমান হামিদা’ বলা আর মুক্তাদির জন্য শুধু ‘রব্বানা লাকাল হামদ’ বলা। ১৪. রুকুতে ‘সুবহানা রাব্বিয়াল আজিম’ বলা। ১৫. সেজদায় বলা ‘সুবহানা রাব্বিয়াল আ’লা’। ১৬. রুকুতে উভয় হাটু আঁকড়ে ধরা। ১৭. রুকুতে পুরুষের জন্য উভয় হাতের আঙুল ফাঁকা রাখা। আর মহিলার জন্য মিলিয়ে রাখা। ১৮. পুরুষের জন্য নামাজে বসার সময় বাম পা বিছিয়ে তার ওপর বসা ও ডান পা খাড়া রেখে আঙুলগুলো কেবলার দিক করে রাখা। আর মহিলার জন্য উভয় পা ডান দিকে বের করে জমিনের ওপর বসা। ১৯. শেষ বৈঠকে তাশাহুদের পর দুরূদ শরিফ পড়া। ২০. দুরূদের পর দোয়া পড়া। ২১. তাশাহুদে ‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ বলার সময় শাহাদাত (তর্জনি) আঙুল দ্বারা কেবলার দিকে ইশারা করা।

নামাজের মুস্তাহাবগুলো হচ্ছে- ১. দাঁড়ানো অবস্থায় সেজদার স্থানের দিকে, রুকু অবস্থায় উভয় পায়ের পাতার ওপর, সেজদার সময় নাকের দিকে, বৈঠকের সময় কোলের দিকে দৃষ্টি রাখা। ২. তাকবিরে তাহরিমা বলার সময় হাত চাদর থেকে বাইরে বের করে রাখা। ৩. সালাম ফেরানোর সময় উভয় কাঁধের ওপর দৃষ্টি রাখা। ৪. নামাজে মুস্তাহাব পরিমাণ কেরাত (ফজর ও জোহরে তিওয়ালে মুফাস্যাল- সুরা হুজরাত থেকে সুরা বুরুজ পর্যন্ত। আসর ও ইশাতে আওসাতে মুফাস্যাল- সুরা তরেক থেকে বায়্যিনা পর্যন্ত। মাগরিবে কিসারে মুফাস্যাল- সুরা জিলজাল থেকে শেষ পর্যন্ত সুরাগুলোর যে কোনোটি) পড়া। ৫. জুমার দিন ফজরের নামাজে প্রথম রাকাতে সুরা আলিফ-লাম-মিম সেজদা ও দ্বিতীয় রাকাতে সুরা দাহর পড়া। ৬. যথাসম্ভব কাশি ও ঢেকুর চেপে রাখা। ৭. হাই এলে মুখ বন্ধ রাখার চেষ্টা করা।

নামাজের এই সুন্নত ও মুস্তাহাব আমলগুলো ছেড়ে দিলে নামাজ হবে না বিষয়টি এমন নয়। বরং নামাজ পরিপূর্ণ করতে হলে অবশ্যই এই আমলগুলো করতে হবে। আল্লাহপাক আমাদের নামাজকে পরিপূর্ণভাবে আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত