প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সিরিজ নিশ্চিত করতেই বুধবার মাঠে নামবে টাইগাররা

আক্তারুজ্জামান : জিম্বাবুয়ে-বাংলাদেশ সিরিজে এখন আর আগেই সেই প্রতিদ্বন্দ্বীতা হয় না। বরং লড়াইটা একেবারেই একপেশে হয়। অনেক সিরিজে টানা ধবল ধোলাই হওয়া জিম্বাবুয়ে এবার ঘুরে দাঁড়ানোর আভাস দিয়েছিল। কিন্তু সে আভাস ধোপে টেকেনি। মিরপুরে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ২৮ রানে হার দিয়েই সফর শুরু করতে হয়েছে মাসাকাদজাদের। আগামীকাল বুধবার চট্টগ্রামে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে সিরিজ নিজেদের কাছে রেখে দিতে চাইছে টাইগাররা। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে ঘুরে দাঁড়াতে চেয়েছে সফরাকারীরাও।

প্রায় দুই বছর পর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে খেলতে নামবে বাংলাদেশ। সাগরিকা বরাবরই বাংলাদেশের পয়মন্ত ভেন্যু। জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে মাঠে নামবে টাইগাররা। দিবা-রাত্রির ম্যাচটি শুরু হবে দুপুর আড়াইটায়।

যদিও পয়মন্ত তবে এই মাঠে শেষ বারের খেলায় পরাজিত হয়েছিল স্বাগতিকরা। ২০১৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সে ম্যাচে চার উইকেটের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছিল। কিন্তু জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এ মাঠের ইতিহাস বাংলাদেশের জন্য সন্তোষজনক। সফরকারী দলটির বিপক্ষে জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে এখন পর্যন্ত ছয়টি ম্যাচ খেলেছে টাইগাররা। একটি ম্যাচ ছাড়া সব গুলো ম্যাচেই জয়ের মুখ দেখেছিল স্বাগতিকরা। পরিত্যক্ত হয়েছিল ঐ একটি ম্যাচ। অভিষেকের পর কালই প্রথম তামিম ইকবালকে দেখা যাবে না সাগরিকায়।

টানা বারো জয়ের সামনে দাঁড়ানো টাইগার শিবিরে নেই বড় দুই শিকারী সাকিব ও তামিম। কিন্তু প্রথম ম্যাচে সেটার কোনো প্রভাব না পড়ায় দল নিয়ে নির্ভার ক্যাপ্টেন ম্যাশ। ইমরুলের ব্যাটে হাসি, মিরাজের কার্যকরী ঘূর্ণি, সাইফউদ্দিনের লোয়ার অর্ডারের ফর্ম সব মিলিয়ে অধিনায়ক কিন্তু বেশ সন্তুষ্ট দলের ওপর। তবে দলের কাচে তার একটু চাওয়া আছে। দলের রান তিনশ না হওয়ায় তিনি বেশ চিন্তিত।

দলের রান নিয়ে তার ভাবনাটা ঠিক এরকম- ‘টপ অর্ডারে একজন একশ করলে কিন্তু রান তিনশ হওয়া স্বাভাবিক। এই জায়গা নিয়ে আমি উদ্বিগ্ন। যে একশ করছে তাকে যে অন্য কেউ সাহায্য করছে না, তার একশ এতো পরে গিয়ে হচ্ছে যে রানটা আর বড় হচ্ছে না। এই অ্যাডজাস্টমেন্টটা এখন হচ্ছে না।’ দলের রান বাড়াতে সকলের ব্যাটেই রান চেয়েছেন মাশরাফি।

অন্যদিকে জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজার আশা ছিল সাকিব-তামিমবিহীন বাংলাদেশকে এবার অন্তত একটি ম্যাচে হারানোর। কিন্তু প্রথম ম্যাচেই তারা বুঝে গেছে বাংলাদেশ এখন খুবই পরিণত দল। তাদের সঙ্গে লড়াইয়ের শক্তিটাও যেন কমে এসেছে জিম্বাবুইয়ানদের। যদিও তারা পূর্ণশক্তির দল এনেছেন। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ানোর আশা করছেন মাসাকাদজারা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ