প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডেড সি স্ক্রল নকল!

আসিফুজ্জামান পৃথিল : মানব ইতিহাসের অন্যতম মূল্যবান সম্পদ বলে বিবেচিত ডেড সি স্ক্রল নকল! এ দাবি অন্য কেউ নয়, সয়ং এ স্ক্রলের কিছু অংশের মালিক ওয়াশিংটনের বাইবেল মিউজিয়াম করেছে! তারা এমনকি এও বলেছে তাদের সংগ্রহে থাকা অন্য ‘পবিত্র’ স্ক্রল গুলোও নকল হতে পারে!

জাদুঘরটি জানিয়েছে জার্মানির একদল স্বাধীন গবেষকের গবেষণায় প্রমানিত হয়েছে ঐতিহাসিক ডেড সি স্ক্রলের ১৬টি স্ক্রলের ৫টির লেখাই প্রাচীন আমলের লেখার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। এ বিষয়ে জাদুঘরটির প্রধান কিরোটিয়াল অফিসার জেফারি ক্লোহা বলেন, ‘আমরা যদিও এ পরীক্ষায় ভিন্ন ফলাফল আশা করেছিলাম, তবুও এ ফল গুরুত্বপূর্ণ। এর রফলে মানুষ বুঝবে বাইবেলের নিদর্শনের সত্যতা নিরুপন করা কতটা জরুরী।’ অবশ্য এটি জানা যায়নি এই ‘নকল’ নিদর্শনের জন্য জাদুঘরটি ঠিক কি পরিমাণ অর্থ ব্যয় করেছে। তবে তা কয়েক মিলিয়ন ডলারের কম হবে না।

গত বছর এ ৫০ কোটি ডলারের জাদুঘরটি চালু হয়। শুরুতেই জনপ্রিয় হলেও এই প্রতিষ্ঠানটি সমালোচনার মুখেও পরে। জাদুঘরটি অধিকাংশ নিদর্শন দানের বদলে কালো বাজার থেকে সংগ্রহ করাতেই মূলত এ সমালোচনা। এ জাদুঘরের অন্যতম ডোনার ‘গ্রিন পরিবারকে’ ১ কোটি ৩০ লাখ ডলার জরিমানা করা হয়েছিলো। কারণ প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিলো তারা এ জাদুঘরের জন্য ইরাক থেকে লুট করা নিদর্শন ক্রয় করছিলো।

ডেড সি স্ক্রলকে এখন পর্যন্ত প্রাপ্ত প্রাচীনতম বিবিওলিকাল নিদর্শন বিবেচনা করা হয়। বলা হয় এ স্ক্রল ওল্ড টেস্টামেনের চাইতেও প্রাচীন। ১৯৪৭ থেকে ৫৬ সালের মধ্যে ইসরায়েলের কেমান গুহায় আবিস্কৃত হয় এ হিব্রু নথি। বলা হয়ে থাকে প্যাপিরাসের এ স্ক্রল যিশুর জন্মের ৪০০ বছর পূর্বে লেখা হয়েছিলো। সায়েন্স অ্যালার্ট

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ