প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মহাজোটের পরিসর বাড়ছে

সাজিয়া আক্তার : আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের বাইরের আরও কিছু দলকে নিয়ে মহাজোটের পরিসর বাড়ানোর চেষ্টা চলছে। তবে, তাতে স্বাধীনতাবিরোধী কোনও দলকে নেয়া হলে আদর্শিক সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন ১৪ দলের শরিকেরা। সূত্র : ডিবিসি টেলিভিশন

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে পরিধি বাড়ানোর নানা তৎপরতা চলছে রাজনৈতিক জোটগুলোতেও। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটও পিছিয়ে নেই। ২০০৮-এর নির্বাচনে জাতীয় পার্টিকে নিয়ে মহাজোট গঠন করা হলেও ২০১৪ সালের নির্বাচনে তা তালগোল পাকিয়ে যায়। কিন্তু এবার জাতীয় পার্টিকে বাইরে রেখেই মহাজোট গড়ে তোলার চেষ্টা চলছে।

সিপিবি-বাসদ নেতৃত্বাধীন বামজোট, বি চৌধুরীর বিকল্পধারা, কর্নেল অলির এলডিপি, কাদের সিদ্দিকীর কৃষক-শ্রমিক জনতা লীগ, জাকের পার্টি, নাজমুল হুদার বিএনএফসহ কয়েকটি দল এ নির্বাচনী জোটে যোগ দিতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে।

এলডিপির সভাপতি কর্নেল অলি আহমেদ বলেন, জোটে যাওয়া বা আলাদাভাবে আওয়ামী লীগের পক্ষে হয়ে নির্বাচনে অংশ নেবার ব্যাপারে আওয়ামী লীগের কোন নেতার সঙ্গে কোন আলাপ অলোচনা হয়নি।

১৪ দলের পরিধি না বাড়িয়ে মহাজোট বড় করার পক্ষে শরিকরা। সমমনা নয় এমন কাউকে ১৪ দলে ভেড়াতেও চান না তারা। বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সভাপতি দীলিপ বড়ুয়া জোটের কলেবর বৃদ্ধি প্রসঙ্গে বলেন, রাজনীতিতে যারা স্বক্রিয় তাদের নিয়ে জোট হতে পারে এবং এটা ইতিবাচকও বটে।

বাংলাদেশ জাসদের সভাপতি নুরুল আম্বিয়া বলেন, শরীক দলগুলোর বিষয়ে পরিস্কার ধারণা পাবার পরই জোটে যোগ দিতে চাই। বিশ দলীয় জোটের শরীক দলগুলোর নীতি ও আদর্শ স্পষ্ট না হলে যুক্ত হবার কোন চিন্তা নেই।

জাতীয় পার্টির মহাসচিব শেখ শহীদুল ইসলাম বলেন, বিকল্পধারাকে নির্বাচনে স্বাগত জানাই। তবে তাদেরকে জোটে স্বাগত জানাব কী না সেটা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তের ব্যাপার।

আওয়ামী লীগ সভাপতি-লী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, মহাজোট সম্প্রসারণ হবে কী হবে না তা নির্ভর করছে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার উপর। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নেবেন মহাজোট হবে কী না বা কীভাবে তারা নির্বাচনে অংশ নেবেন। চৌদ্দ দলীয় জোট তো আছেই। এটা বাড়ানো বা কমানোর কোনো চিন্তা আপাতাত নেই। বাড়ানোর বিষয়টা নির্বাচনের সময় চিন্তা করতে পারি হয়তো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ