প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চলতি বছরে এ পর্যন্ত সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২৮৩০ জন

অপু খান : বাংলাদেশে নিরাপদ সড়কের দাবি নিয়ে কাজ করা সংগঠন ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ এর পরিসংখ্যান জানিয়েছে এ বছরের জানুয়ারি মাস থেকে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত সড়ক দুর্ঘটনায় ২৮৩০ জন মানুষ মারা গেছেন। অর্থাৎ প্রতিদিন গড়ে ১১ জন মানুষ মারা যান সড়ক দুর্ঘটনায়।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে প্রায় ৩ মাস আগে বাংলাদেশে ব্যাপক ছাত্র বিক্ষোভের পর সরকার সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ পাশ করে। কিন্তু ৩ মাস পার হলেও ঢাকার রাস্তার খুব একটা উন্নতি হয়নি। বাঙলা কলেজ ছাত্র মাসুম হাওলাদার বলেন, সড়কে কিছুটা শৃঙ্খলা ফিরলেও এখন পর্যন্ত তেমন অগ্রগতি হয়নি। নিয়মিত সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষ মারা যাচ্ছে এটা খুব চিন্তার বিষয়। শুধু আইন দিয়ে নয় সরকারকে মিডিয়ার মাধ্যমে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে রাস্তা পারাপারে, পাশাপাশি আমাদের নিজেদেরও সচেতন হতে হবে, ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহার করতে হবে।

অন্য এক শিক্ষার্থী জানান , গাড়ির ফিটনেস ও ড্রাইভারদের লাইসেন্স না থাকায় বাসের সংখ্যা কমে যাচ্ছে তেমনি ড্রাইভারদের মধ্যে পাল্লার কারনেও সড়ক দুর্ঘটনা হচ্ছে। মিরপুরের এক বাস ড্রাইভার জানান, যাত্রী পাবার কারণে আমাদের পাল্লাপাল্লি করতে হচ্ছে। তবে এর মাত্রা কমে আসছে আমাদের মধ্য।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্ঘটনা বিষয়ক গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক অধ্যাপক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বিবিসি বাংলাকে বলেন, সড়ক পরিবহনে এ আচরণ কেন পরিবর্তন হচ্ছে না এর পিছনের কারণগুলো আমাদের খুঁজে বের করতে হবে। আমাদের যে পরিমান পরিবহন প্রয়োজন সে পরিমান কিন্তু গণপরিবহন নেই। আমাদের যখন যাতায়ত করা প্রয়োজন আমরা রাস্তার মাঝখানে দাড়িঁয়ে বাসগুলোকে থামাচ্ছি। আমরা কিন্তু জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাসে ঝুলে ঝুলে অফিসে যাচ্ছি।

এ অধ্যাপক পরার্মশ দিয়ে বলেন, গণপরিবহনের সরবারহ বাড়াতে হবে, তা এলিভেটেড ট্রেন হতে পারে বা আন্ডার গ্রাউন্ড ট্রেন হতে পারে । এতে প্রতি ঘন্টায় ৫০ থেকে ৬০ হাজার যাত্রী বহন করতে পারে ,বাসে অবশ্য তা ৬ হাজারের বেশী সম্ভব হয় না।

এদিকে মহানগর ট্রাফিক পুলিশ বিভাগ থেকে জানানো হয়েছে, ট্রাফিক আইন মানার ক্ষেত্রে যাত্রী এবং চালক উভয়েরই অনিহা রয়েছে। গত শনিবার একদিনেই ৪০১৩ টি মামলা হয়েছে বলেও জানান ট্রাফিক পুলিশ। সূত্র: বিবিসি বাংলা

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ