Skip to main content

খালেদা জিয়া মুক্তি পেলে ড. কামালের কী হবে?

দেবদুলাল মুন্না : ড. কামালের কোনো গোপন এজেন্ডা আছে কি বা তার শেষ পরিণতি কোনদিকে? এসব প্রশ্ন-গুঞ্জন রয়েছে রাজনীতির মাঠে। গতকাল সোমবার ড. কামাল বলেছেন, তিনি নির্বাচনে প্রার্থী হবেন না এবং রাষ্ট্রীয় কোন পদও চান না। তিনি সংবিধান-প্রণেতাদের একজন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হত্যার পর শেখ হাসিনাকে দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে একজন অন্যতম উদ্যোগী। শেখ মুজিব সরকারের মন্ত্রিসভায় ছিলেন। কিন্তু ধীরে ধীরে তিনি আওয়ামী লীগ রাজনীতি থেকে সরে পড়েন। তার জামাতা সাংবাদিক বার্গম্যান বর্তমান সরকারের আমলেই হেনস্থার শিকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমালোচনাও তাকে শুনতে হয়েছে বিভিন্ন সময়ে। রাজনীতিতে দীর্ঘদিন নীরব থাকলেও তার একটা ক্লিন ইমেজ আছে এবং আছে বিদেশি কানেকশন। ফলে অনেকে মনে করছেন বিএনপি তার নেতৃত্ব মেনে নিয়েছে শুধু আওয়ামী লীগকে কাবু করার জন্য। কিন্তু বিএনপির সঙ্গে কামাল হোসেনের সখ্য থাকবে কতদিন, এ প্রশ্নও রয়েছে রাজনীতির ময়দানে। বিএনপির হাইকমান্ডের একজন নেতা জানান, তারেক রহমানের নির্দেশ, ড. কামালের নেতৃত্ব শর্তহীনভাবে মানতে হবে। বিএনপির সঙ্গে গোপনে জামায়াতের যে আঁতাত রয়েছে, সেটি সবাই জানেন। জোটের বাকি দলগুলোর নেই জনভিত্তি। ফলে ফ্রন্টের নেতৃত্বে থাকবে শেষ পর্যন্ত বিএনপিই। ফলে এ জোট যদি নির্বাচনে জয়লাভ করে তবে লন্ডনে বসে তারেক রহমান হবেন মূল নীতি-নির্ধারক। আর ঢাকার ভাইসরয় হবেন ড. কামাল হোসেন, এমনটাই মনে করেন আবদুল গাফফার চৌধুরী। প্রশ্ন হলো, ড. কামাল কি ভাইসরয় হয়ে সন্তুষ্ট থাকবেন? সোমবার যুগান্তরে আবদুল গাফফার চৌধুরী এক লেখায় বলেন, বিএনপি ও জামায়াত জোট থেকে বেরিয়ে আসা দুটি দল বলছে, কামাল হোসেন মাইনাস টু থিওরির উদ্ভাবক। খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে শাস্তি দেয়া এবং শেখ হাসিনার দলকে নির্বাচনে পরাজিত করে কৌশলে ‘ক্লিন রাজনীতি’র শুরু করা তার। কিন্তু কামালের এ স্বপ্নের জনভিত্তি কোথায়? কাদের সিদ্দিকী বলেন, আমরা আশা করেছিলাম আওয়ামী লীগ ও বিএনপি জোটের বাইরে কামাল হোসেন নতুন জোট গঠন করবেন। কিন্তু তিনি তা করলেন না। এদিকে বিএনপির পক্ষ থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তির কথা বলা হচ্ছে। আইনি লড়াইয়ে এ মুক্তি সম্ভব। রাজনৈতিক বিশ্লেষক বিভুরঞ্জন সরকার বলেন, যদি আইনি প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়া এরই মাঝে মুক্তি পান তবে কামাল হোসেনের ভুমিকা কী হবে নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে তিনি ভেবে দেখেছেন কি? সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব

অন্যান্য সংবাদ