প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাখীর বিরুদ্ধে ১০ কোটি রুপির মানহানি মামলা করেছেন তনুশ্রী

ইমরুল শাহেদ : বলিউড অভিনেত্রী তনুশ্রী দত্ত সোমবার বলিউডের আরেক অভিনেত্রী রাখী সায়ন্তের বিরুদ্ধে ১০ কোটি রুপির মানহানির মামলা করেছেন। রাখী সায়ন্ত তাকে ২০০৮ সালে নির্মিত ‘হর্ন ওকে প্লিজ’ ছবির সেটে মাদকাসক্ত অবস্থায় ছিলেন বলে উল্লেখ করেছেন।
তনুশ্রীর উদ্দেশে রাখী সাওয়ান্ত বলেন, ‘এখন বুঝতে পারছি, তুমি (তনুশ্রী) এই নাটক যুক্তরাষ্ট্রের গ্রিন কার্ড আর ভিসার জন্য করেছ। কানাডাতে তোমার বয়ফ্রেন্ড আছে। তুমি সারা জীবনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে থাকতে চাও।
উল্লেখ বিষয় হলো ১০ বছর আগের একটি ক্ষত নিয়ে দেশে ফিরেন বলিউডের একসময়ের তারকা ও সাবেক ভারত সুন্দরী তনুশ্রী দত্ত। ফিরেই তার অভিযোগ, তাকে যৌন হয়রানি করেছিলেন নানা পাটেকার। এ কারণে তিনি ছবিটি ছেড়ে দেওয়ার পর তার জায়গায় কাজ করার জন্য রাখী সাওয়ান্তকে ডাকা হয়।
হলিউডের প্রযোজক ওয়েনস্টেইনকে দিয়ে শুরু হওয়া যৌন হয়রানির #মি টু আন্দোলন আরব সাগরের তীরবর্তী মুম্বাইয়ের বলিউডেও আঘাত হানে। সেই আঘাতের প্রথশ ঝাপটাটি লেগেছে অভিনেতা নানা পাটেকারের গায়ে। তার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ করেছেন তনুশ্রী দত্ত। তিনি একটি সাহসী পদক্ষেপের জন্য অভিনন্দন যেমন পেয়েছেন, তেমনি তিরস্কৃতও হয়েছেন। যারা তনুশ্রীকে তিরস্কার করেছেন তাদের একজন হলেন বলিউডের আরেক তারকা রাখী সাওয়ান্ত। নানা পাটেকারকে নিয়ে তনুশ্রীর অভিযোগের পর রাখী সায়ন্ত তার তীব্র সমালোচনা করেন এবং তাকে মাদকাসক্ত বলেও মন্তব্য করেন। রাখীর এই মন্তব্যের জন্য তার বিরুদ্ধে তনুশ্রী ১০ কোটি রুপি দাবি করে মানহানির মামলা করেছেন।
যৌন হয়রানির অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণ করার জন্য রাখী সাওয়ান্ত তখন বলেন, ‘তনুশ্রী মাদক সেবন করে নিজের ভ্যানে পড়ে ছিল। একাধিকবার ডাকাডাকির পরও দরজা খোলেননি। গণেশ আচার্য ও নানা পাটেকার আমাকে ফোন করে ডেকে পাঠান। তাদের কথামতো আমি তনুশ্রীর পরিবর্তে আইটেম ড্যান্স করি। তনুশ্রী কিছুটা অংশ শুট করে নিজের ভ্যানে গিয়ে দরজা বন্ধ করেছিল। পরে আমি ওর মেকআপ আর্টিস্ট আর হেয়ার ড্রেসারের কাছ থেকে আসল কারণ জানতে পারি। তনুশ্রী ড্রাগের নেশায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়েছিল। চার ঘণ্টা পর তার নেশার ঘোর কাটে।’ ইকোনোমিক টাইমস

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ